কিন্তু সমস্ত সমস্যা দেখতাম ওই সোজা পথ ও আত্মসমর্পণ নিয়ে – দেখতাম মানে আজো দেখছি এবং এই সমস্যা পিছু ছাড়ছে না – এই দিকনির্দেশনার মধ্যেই আছে রাজনৈতিক ইসলাম অথবা ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহার। [...]

সোজা পথ। আত্নসমর্পণ। মানুষের জীবনের লক্ষ্য নিয়ে ইসলামের এই দুই গুরুত্বপূর্ণ দিকনির্দেশনার পাশাপাশি আছে সাক্ষ্য, প্রার্থনা, দান, সংযম, বিসর্জন ও তীর্থ সম্মেলন। ছোটোবেলা থেকেই দেখছি – সাক্ষ্য, প্রার্থনা, দান, সংযম, বিসর্জন ও তীর্থ সম্মেলন নিয়ে তেমন সমস্যার কোনো কিছু নেই। এসব পালনীয় ধর্মীয় কর্মকাণ্ডের সুনির্দিষ্ট করণকৌশল ও আচরণবিধি আছে এবং হুজুরদের সাথে সাধারণ মুসলমানের এসব নিয়ে তেমন কোনো তুলকালাম ব্যাপারস্যাপার নেই বললেই চলে – বরং এগুলোই সমাজে হুজুর ও সাধারণ মুসলমানদের ধর্মীয় সম্পর্কের মূলভিত্তি।

কিন্তু সমস্ত সমস্যা দেখতাম ওই সোজা পথ ও আত্মসমর্পণ নিয়ে – দেখতাম মানে আজো দেখছি এবং এই সমস্যা পিছু ছাড়ছে না – এই দিকনির্দেশনার মধ্যেই আছে রাজনৈতিক ইসলাম অথবা ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহার। কোনটা সোজা পথ? কিভাবে চলতে হয় এই সোজা পথ ধরে? কার জন্য কোনটা সোজা পথ? আত্মসমর্পণ কার কাছে? কার আত্মসমর্পণ? কতভাবে আত্মসমর্পণ? কত মাত্রার আত্মসমর্পণ?

রাজনৈতিক ইসলাম চায় নিজের রাজনৈতিক জয় এবং তার জয়লাভের মাধ্যমই হবে এটি প্রচার করা যে একটি ইসলামি রাষ্ট্র পেলেই সোজা পথ হাসিল হবে এবং একটি ইসলামি রাষ্ট্র কায়েম হলে সেই রাষ্ট্রের কাছে সবার আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে সবার জীবনের লক্ষ্য বাস্তবায়িত হবে। অর্থাৎ একটা সর্বব্যাপী অনুশাসন কায়েম হবে – সেই অনুশাসনের রক্ষণাবেক্ষণে প্রজন্মের পর প্রজন্ম রাজনৈতিক মুক্তি পাবে।

কিন্তু সাধারণ মুসলমানরা কি রাজনৈতিক ইসলামের এই সোজা পথ ও আত্মসমর্পণের সূত্র মানে? রাজনৈতিক ইসলাম বাংলাদেশে এখনো শতকরা ৪ – ৭ ভাগের বেশি ভোট পায় না। কাজেই আমরা তো সহজেই বলতে পারি বাংলাদেশের মুসলামনেরা সাক্ষ্য, প্রার্থনা, দান, সংযম, বিসর্জন ও তীর্থ সম্মেলনে পরিবেষ্টিত (যদিও সেখানে উল্লেখযোগ্য হারে অনাচরণীয় মুসলমান বিদ্যমান) এবং তারা সোজা পথ ও আত্মসমর্পণের রাজনৈতিক ইসলামের সূত্র মানে না।

কিন্তু না, ২৬শে মে ২০১৩ আইসিএসএফ আয়োজিত ‘ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশে রাজনৈতিক ইসলাম’ শীর্ষক সেমিনারের প্রথম পর্বের আলোচক হাসান মাহমুদের একটা বাস্তব আর্তি

আমরা যারা কোটি কোটি লোক ধর্মে বিশ্বাস করি। আমরা মানুষ হিসাবে দুর্বল। ষড়রিপুর তাড়নায় আমরা তাড়িত, আমরা ভুল করতে পারি

শুনে আমি চিন্তায় পড়ে গেলাম। আমার মনে হল এই কোটি কোটি মানুষ সোজা পথ ও আত্মসমর্পণ নিয়ে তাহলে এভাবেই বিজড়িত। তাহলে এই কোটি কোটি মানুষের শতকরা ৬৫ ভাগ মনে করে শারিয়া আইন আল্লাহর নাজিলকৃত আয়াত, শতকরা ৮২ ভাগ বাংলাদেশে শারিয়া আইন চান, শতকরা ৫৭ ভাগ মনে করেন শারিয়া আইন এক ও অভিন্ন, শতকরা ৫৫ ভাগ পাথরের আঘাতে ব্যাভিচারীর মৃত্যদণ্ড সমর্থন করেন, শতকরা ৪৪ ভাগ নাস্তিক মুরতাদের মৃত্যদণ্ড সমর্থন করেন।

এখানেই বিপদ এখানেই কাজ। যদিও বাংলাদেশে রাজনৈতিক ইসলামের ভোট খুব কম কিন্তু বাংলাদেশের কোটি কোটি ইসলাম ধর্মবিশ্বাসী সোজাপথ ও আত্মসমর্পণের নৈতিক অবস্থানের থেকে নিজেদের অজান্তেই মহাবিপদজনক রাজনৈতিক অবস্থানের দিকে চলে গেছে। এখানেই হাসান মাহমুদদের নির্দেশিত পথে ধর্মতাত্ত্বিক পথে শারিয়ার বিরুদ্ধে ইসলামি ধর্মরাষ্ট্রীয় অনুশাসনের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর প্রয়োজনীয়তা। এখানেই রাজনৈতিক ইসলামকে খণ্ডনের জায়গা – কোটি কোটি মুসলমানকে এটাই বোঝাতে হবে সোজা পথ আল্লাহ রসুলের পথ, হিংসা ছড়িয়ে ইসলামি রাষ্ট্রের নামে আল্লাহ রাসুলকে অবমাননা কখনো সোজা পথ হতে পারে না। আত্মসমর্পণ সবসময়ে রাসুলের সাথে আল্লাহর কাছে – কোনো আয়াতুল্লাহ, মুফতি, ওলামা, মাওলানা, পীর, মাশায়েখ, শায়খুল হাদিস বা তফসিরকারীকে এবিষয়ে কোনো ক্ষমতা প্রদান করা হয়নি : বরং একজন সাধারণ মুসলমানের মতো এসব অসাধারণ মুসলমানকেও রাসুলের সাথে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করতে হবে।

মাসুদ করিম

লেখক। যদিও তার মৃত্যু হয়েছে। পাঠক। যেহেতু সে পুনর্জন্ম ঘটাতে পারে। সমালোচক। কারণ জীবন ধারন তাই করে তোলে আমাদের। আমার টুইট অনুসরণ করুন, আমার টুইট আমাকে বুঝতে অবদান রাখে। নিচের আইকনগুলো দিতে পারে আমার সাথে যোগাযোগের, আমাকে পাঠের ও আমাকে অনুসরণের একগুচ্ছ মাধ্যম।

12
আলোচনা শুরু করুন কিংবা চলমান আলোচনায় অংশ নিন ~

মন্তব্য করতে হলে মুক্তাঙ্গনে লগ্-ইন করুন
avatar
  সাবস্ক্রাইব করুন  
সাম্প্রতিকতম সবচেয়ে পুরোনো সর্বাধিক ভোটপ্রাপ্ত
অবগত করুন
রবিউল ইসলাম সবুজ
সদস্য

মাসুদ করিম কে ধন্যবাদ । ধর্ম ইসলাম কে তিনি সময়ের পাতে প্রাসঙ্গিকতার আস্বাদে উপস্থাপন করলেন বলে । আজ তো সবই ফ্যাশন হয়ে দাঁড়িয়েছে, ধর্ম কে মানা অথবা না মানা দুটোই য্যানো বাহবা কুড়োনোর প্ল্যাটফর্ম । ইসলাম পন্থী সুবিধাবাদিরা যেমন ইসলাম কে রাজনৈতিক মোড়কীকরণ করেন, তেমনি – না মানার দলে যারা আছেন তারা, ইসলামকে কতটা ন্যাক্কারজনক ভাবে উপস্থাপন করা যায় তার প্রতিযোগীতায় নামেন । দুটো উদ্দেশ্যই রাজনৈতিক নয় কি ? ধর্ম ইসলাম কে রাজনৈতিক ইসলামে রূপান্তরিত করে কিছু মানুষ ফায়দা লোটে, আর ঐ সব মানুষের উত্থানের পেছনেও থাকে আরও কিছু মানুষ । যারা খোদ ধর্ম ইসলামকেই অপ্রাসঙ্গিকতার মোড়কে বিতরণ করে বিজ্ঞানমনষ্কতার… বাকিটুকু পড়ুন »

  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.