আমার ছেলে এটা মোটেই ঠিক কাজ করেনি, তারেক জিয়ার সাথে তার পার্থক্যের উত্তরে শিক্ষাগত যোগ্যতার কথা তুলে সে ঠিক কাজ করেনি, আমাকে খালেদা জিয়ার সাথে তুলনা করতে সারা পৃথিবী যেভাবে ব্যস্ত হয়ে পড়েছিল এবং এখনো যে ব্যস্ততার কোনো শেষ নেই — কই, আমি তো কোনোদিন সে তুলনার উত্তরে শিক্ষাগত যোগ্যতার কথা তুলিনি। তুলিনি কারণ এ তো সবাই দেখতে পায়, একথা বলে যার শিক্ষাগত যোগ্যতা নেই তার কোনো ক্ষতি হয় না, ক্ষতিটা হয় যার সেটা আছে। ওবামা জ্ঞানী মানুষ, বুশ, সারাপৃথিবী জানে ছিলেন আমেরিকার সবচেয়ে স্টুপিড প্রেসিডেন্ট। কিন্তু সেই জ্ঞানী মানুষ দিয়ে এখনো তো তেমন কিছু হল না, আগের বুশের বাহিনী ও তার ঘটানো সব কার্যকলাপের রিপেয়ারিং করেই যদি তার জীবন কাটে, তার এই জ্ঞান শুধু সুন্দর করে কথা বলার কাজেই যদি ব্যয় হয়, তাহলে পৃথিবীর কোন কাজটাই বা এগোবে। এবারের জলবায়ু সম্মেলনেও তাই হল, সেই পুরনো সব কথা, উষ্ণায়ন কমানো হবে, কমাতেই হবে। কিন্তু আমার দেশে প্রতি বর্গকিলোমিটারে যেখানে ১০৫২ জন লোকের বসবাস, সেখানে উষ্ণায়নের থাবায় শুধু একশ বর্গকিলোমিটার সাগরের পেটে গেলেই আমার দেশের এক লাখ লোক হবে শরণার্থী, আমি একটি তলানির দেশের প্রধানমন্ত্রী, আমি তো এখনো আমার নিজের দেশের ওপর সমুদ্রের এই আগ্রাসন নিয়ে গবেষণার করবার জন্য একটা মাল্টিডিসিপ্লিনারি পরিষদই গঠন করতে পারলাম না, আর এটা করা ছাড়া আমি বা আমার দেশের সরকার তার যাবতীয় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয় ও প্রতিকারের কী ব্যবস্থা করবে? কিন্তু জাতিসংঘ বলছে, তেমন দেশের গবেষণার জন্যই তো আমরা আছি, আমরা চলে আসব, ফান্ড আসবে, আর ফান্ডের খরচ করাটাই হবে আমাদের কাজ, আপনি শুধু ভাউচারে স্বাক্ষর করার লোক তৈরি রাখুন, তাদের কে কত পাবে, আপনার কত লাগবে এসব ঠিক করে রাখুন। আপনাদের ইচ্ছাপত্রের সাথে আমাদের ইচ্ছাপত্র মিলিয়ে আমরা কাজ শুরু করে দেব। হ্যাঁ, সবকিছু সেভাবেই হবে — কিন্তু দুর্নীতির দায়ে আমাদের ইচ্ছাপত্রগুলোই শুধু প্রকাশিত হবে, তাদেরগুলো নয়।
আমার বাবার একটা কথা সবসময় শোনা যায়, চাটার দল, কিন্তু এরা এখন আর শুধু চাটে না, এরা এখন খায়, আমার চারপাশে এখন জমিখোর, নদীখোর, শেয়ারখোর, খাদ্যখোরের আড্ডা। বাংলাদেশে এখন একটা কথা উঠেছে উন্নয়নভাবনার সাথে জলবায়ুর ভাবনাও ভাবতে হবে। আমার হাসি পায়, শুধু উন্নয়নের কারণে যদি বাংলাদেশের জলবায়ুর উপর ক্ষতিকর প্রভাব পড়ত, যেমনটি চীনে ঘটেছে, তাহলে জলবায়ুর ক্ষতির পাশাপাশি, উন্নয়নের ফলাফল হিসেবে কর্মসংস্থান থাকত অবকাঠামো থাকত, কোথায় আমার কর্মসংস্থান, কোথায় আমার অবকাঠামো? জমিখোর, নদীখোর, শেয়ারখোর ও খাদ্যখোর এদের সাথে উন্নয়নভাবনার যেমন সম্পর্ক নেই, তেমনি জলবায়ুরও কোনো সম্পর্ক নেই। আমার জলবায়ু সম্মেলনে যোগদান সে অর্থে শুধু কথা রাখা, আমার সমস্যার সমাধান হজ আর ওমরাতেই ভালো হয়, আমার জলবায়ু তার হাতে, এটাই আমার বিশ্বাস, আমার আশেপাশের খোরগুলোরও তারই ওপর বিশ্বাস, বিশ্বাসে মিলায় হরি, সরি… কী করব আমি যে দেশের ধর্মনিরপেক্ষ শক্তির নেত্রী, আর খোরগুলোর প্রধানমন্ত্রী!

মাসুদ করিম

লেখক। যদিও তার মৃত্যু হয়েছে। পাঠক। যেহেতু সে পুনর্জন্ম ঘটাতে পারে। সমালোচক। কারণ জীবন ধারন তাই করে তোলে আমাদের। আমার টুইট অনুসরণ করুন, আমার টুইট আমাকে বুঝতে অবদান রাখে। নিচের আইকনগুলো দিতে পারে আমার সাথে যোগাযোগের, আমাকে পাঠের ও আমাকে অনুসরণের একগুচ্ছ মাধ্যম।

12
আলোচনা শুরু করুন কিংবা চলমান আলোচনায় অংশ নিন ~

মন্তব্য করতে হলে মুক্তাঙ্গনে লগ্-ইন করুন
avatar
  সাবস্ক্রাইব করুন  
সাম্প্রতিকতম সবচেয়ে পুরোনো সর্বাধিক ভোটপ্রাপ্ত
অবগত করুন
রায়হান রশিদ
সদস্য

উন্নয়নের কারণে যদি বাংলাদেশের জলবায়ুর উপর ক্ষতিকর প্রভাব পড়ত, যেমনটি চীনে ঘটেছে, তাহলে জলবায়ুর ক্ষতির পাশাপাশি, উন্নয়নের ফলাফল হিসেবে কর্মসংস্থান থাকত অবকাঠামো থাকত, কোথায় আমার কর্মসংস্থান, কোথায় আমার অবকাঠামো? জমিখোর, নদীখোর, শেয়ারখোর ও খাদ্যখোর এদের সাথে উন্নয়নভাবনার যেমন সম্পর্ক নেই, তেমনি জলবায়ুরও কোনো সম্পর্ক নেই। তাতে কিন্তু উন্নয়নের সাথে জলবায়ুর এবং এমনকি দারিদ্রের যোগাযোগটাও মিথ্যে হয়ে যায় না মাসুদ ভাই। এটা ঠিক, চোখে পড়ার মতো উন্নয়নটা আমাদের নেই, কিন্তু উন্নয়নের উছিলায় চোখ-রাঙ্গানিটা ঠিকই আছে। অনেকটা কাঠি-লজেন্সের মতো একটা ব্যাপার। লজেন্সটা অন্যদের আর আমাদের ভাগে কেবল শুকনো কাঠিটা! ২০০৭ সালে চ্যানেল ফোর “The Great Global Warming Swindle” নামে অত্যন্ত বিতর্কিত একটি… বাকিটুকু পড়ুন »

trackback

[…] এক বিয়োগ এক : খালেদা জিয়ার গোপন ডায়েরি আমার জলবায়ু : শেখ হাসিনার গোপন ডায়েরি টিপাইমুখ বাঁধ : দীপু মনির গোপন […]

  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.