মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন যাঁরা, তাদের কত অংশ রাজনীতি অর্থনীতির জটিল তত্ত্বপাঠ নিয়ে তারপর অংশ নিয়েছিলেন আর কত অংশ গিয়েছিলেন স্রেফ ভালোবাসার তাগিদে? মানুষের প্রতি নেতৃত্বের, আর নেতৃত্বের প্রতি মানুষের সেই ভালোবাসা [..]

১.
আর্নেস্তো চে গুয়েভারার ওপর নির্মিত স্টিভেন সডেরবার্গ এর ছবি ‘দি আর্জেন্টাইন’ দেখছিলাম। ছবিটি শুরু হয়েছে ১৯৬৪ সালে হাভানায় সাংবাদিক লিসা হাওয়ার্ডের নেয়া চে গুয়েভারার একটি সাক্ষাৎকারকে পটভূমিতে রেখে। সাক্ষাৎকারের এক পর্যায়ে লিসা জিজ্ঞেস করলেন:

– What is the most important quality for a revolutionary to possess?

– l`amour.
(‘ভালোবাসা’, চে’র উত্তর। ‘মানুষের প্রতি, ন্যায় এর প্রতি, আর সত্যের প্রতি ভালোবাসা’)।

তরুণ বয়সে চে তখনো চে হয়ে ওঠেননি, স্রেফ আর্নেস্তো। বেরিয়ে পড়েছিলেন লাতিন আমেরিকা ঘুরে দেখতে। সম্বল একটি মটরসাইকেল আর মানুষের প্রতি গভীর মমতা আর ভালোবাসা। মানুষকে ভালোবেসেই ক্রমে আর্নেস্তো হয়ে উঠেছিলেন চে। সেই ভালোবাসা মানুষও তাকে ফিরিয়ে দিয়েছে দু’হাতে। চের মৃত্যুর পর ৪৩ বছরেও সেই ভালোবাসা এতটুকু ম্লান হয়নি, বরং দেশ কাল সীমানা সময় ডিঙিয়ে – লাতিন আমেরিকা ইউরোপ থেকে শুরু করে বাংলার একটি তরুন কিংবা কিশোরের চোখেও সেই ভালোবাসা সমান দীপ্তি নিয়ে জ্বলে।

২.
আরেকটি সাক্ষাৎকারের কথা বলি এবার। স্বাধীনতার ঠিক পর পরই সাংবাদিক ডেভিড ফ্রস্টকে দেয়া বঙ্গবন্ধুর সাক্ষাৎকার।

ফ্রস্ট প্রশ্ন করলেন – ‘আপনার সবচেয়ে বড় শক্তি কি’?
বঙ্গবন্ধু বললেন – ‘আমি আমার মানুষকে ভালোবাসি’
ফ্রস্ট এবার জিজ্ঞেস করলেন – ‘আপনার সবচেয়ে বড় দুর্বলতা কি’?
একটু থেমে বঙ্গবন্ধু বললেন – ‘আমি তাদের বড় বেশী ভালোবাসি’

বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন – ‘আমি আমার দেশের মানুষের ভালোবাসা পেয়েছি, সেই ভালোবাসা নিয়ে মরতে চাই, আর কিছু চাই না’।

৩.
মানুষ রাজনীতি করে মানুষেরই জন্য। আর সেই মানুষও ভালোবেসেই কাউকে তাদের নেতা বানায়। নেতার এক ডাকে মুক্তির বাণী বুকে নিয়ে রাজপথে জীবন দেয়, স্টেনগান হাতে তুলে নেয়। বিশ্বের সবচেয়ে পরাক্রমশালী রাষ্ট্রগুলোর বিরুদ্ধে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে যায়। কখনো কখনো এই ভালোবাসাই কয়েক দশকের মিথ্যা ক্লেদ গ্লানি স্তাবকতাকে দু’হাতে সরিয়ে সত্যের সন্ধান করে। মিথ্যাচার দেখলে প্রতিবাদ করে, মিথ্যাবাদীদেরকে এবং তাদের দোসরদের চিহ্নিত করে।

৪.
মনে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে এক বন্ধুর সাথে তার নেতার বক্তৃতা শুনতে গিয়েছিলাম। ফিরে এসে বন্ধুটিকে বলেছিলাম – ‘যে নেতৃত্বের প্রত্যাশা আমি করি, তার নেতার মধ্যে আমি সেটি খুঁজে পাইনি’। বন্ধুটি দুঃখিত হয়ে আমাকে একটি লম্বা লেকচার দিয়েছিল – ব্যক্তিগত ক্যারিশমা বা মমতা দিয়ে কেন একজন নেতাকে বিচার করা সঠিক নয় (বৈজ্ঞানিক তো নয়ই) – তা বোঝাতে। শুনে আমার চমক লেগেছিল। ‘ব্যক্তি মমতানিরপেক্ষ’, ‘যুক্তিনির্ভর’, ‘বৈজ্ঞানিক নেতৃত্ব’ – কি সুন্দর দ্যোতনাময় শব্দগুলো! বন্ধুটির মাথায় হয়তো যা কখনোই আসেনি তা হল – এই ক্যারিশমা বা মমতা নিয়ে কোন নেতাই জন্মান না। এক দিনে তা তৈরীও হয় না।

৫.
চেঙ্গিজ আইতমাতভ এর ‘প্রথম শিক্ষক’ (Duishen / The First teacher, 1962) আমার সবচেয়ে প্রিয় গল্পগুলোর একটি। গল্পের স্বল্পশিক্ষিত সেই অসাধারন শিক্ষকের কথা মনে আছে? লেনিনের প্রতি গভীর ভালোবাসাকে সম্বল করে প্রত্যন্তের ছোট্ট একটি গ্রামে ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের শিক্ষিত করার দায়িত্ব যিনি নিয়েছিলেন। স্কুলের শিশুদের প্রথম যে শব্দটি লিখতে শিখিয়েছিলেন, তা হল ‘লেনিন’।

লেখাটির একটি প্রিয় অংশ থেকে উদ্ধৃত করছি:

When we came into our classroom and sat down on the straw, Duishen did not go and light the stove at once as he usually did.
“Get up,” he ordered us. We did. “Bare your heads.” Obediently we took off our caps, and he took off his peaked cap, too. We did not know what it meant. And then he told us in a breaking, husky voice:

“Lenin is dead. People the world over are mourning him. And you, too, must stand where you are and not talk. Look at his picture. Remember this day.”

Our schoolroom became so quiet as if it lay buried under snow. We could hear the wind blowing in through the chinks in the walls. We could hear the straw rustling as the snowflakes fell on it.

That mournful hour when bustling towns became mute, when factories whose clamor shook the earth grew still, when rumbling trains paused on the tracks, when the whole world grieved in silence, we too, a particle of a part of the people, stood in solemn silence with our teacher in that icy barn called school, and took farewell of Lenin, believing in our hearts that none could be closer to him and none more bereft. And there was our own Lenin in his baggy jacket, and his arm in a sling, looking at us from the wall as before. And as before he seemed to speak to us, saying with his clear, trusting eyes: “Children, if only you knew what a future awaits you!” And I fancied, in those silent moments, that he really was thinking of my future.
(মূল রুশ থেকে ওলগা শার্তস এর অনুবাদ)

এই ভালোবাসাকে কি বলে? অন্ধ লেনিন পূজা? সোভিয়েত রাশিয়ার পতনের পর আড়ম্বরে যখন লেনিনের মুর্তি ভাঙ্গা হচ্ছিল, পৃথিবী জুড়ে বিবেকবান মানুষেরা গভীর বিষাদে দীর্ঘশ্বাস চেপে ভাবছিল – কাজটা ঠিক হল না। এদের কিংবা দুশ্যেনদের কি বলা সঙ্গত হয়? লেনিন কাল্টের চর্চাকারী অবৈজ্ঞানিক মানুষের দল?

৬.
মাঝে মাঝে ভাবি – মমতা, ভালোবাসা শব্দগুলো কারও কারও কাছে এতো নেতিবাচক অর্থ নিয়ে দাঁড়িয়ে গেল কিভাবে? কারা করলো? হয়তো তারাই – মানুষকে জাগিয়ে তোলার, মানুষের বিশ্বাস আস্থা অর্জন করার ক্ষমতা যাদের নেই। যারা নানান তত্ত্বের ফাঁকে পড়ে মানুষকে ভালোবাসার সেই সহজ সাধারণ তত্ত্বটিই হয়তো ভুলে গেছেন। দেশের মানুষগুলোও তাই নিতান্ত বৈজ্ঞানিক এবং যুক্তিযুক্তভাবেই গত ৩৯ বছরেও তাদের আর ভালোবাসতে পারলো না!

কি জানি হয়তো একারণেই একরকম হীনমন্যতা থেকে এই শ্রেনীটি কখনো ব্যক্তিমমতাহীন বৈজ্ঞানিক বিপ্লবের তত্ত্বের আড়ালে লুকিয়ে, কখনো ‘পারসোনালিটি কাল্ট’ এর ধোঁয়া তুলে – ‘পারসোনালিটি’-গড়ে ওঠার প্রক্রিয়াটিকেই অস্বীকার করার আপ্রাণ চেষ্টা করেন, একে ছোটো করার চেষ্টা করেন। স্নানের গামলা থেকে শিশুটিকে আগেই ছুঁড়ে ফেলা হয়েছিল, এখন যেন পড়ে থাকা জলটুকুও ছুঁড়ে ফেলার আয়োজন! কিন্তু এরা ভুলে যান, ‘পারসোনালিটি কাল্ট’ তৈরী হতে হলেও প্রথমে সেই মাপের ‘পারসোনালিটি’ লাগে। সময় এবং মানুষই নিজের হাতে বহু বছরে সেই পারসোনালিটি তৈরী করে। আর সেটি হয় এমনই পারসোনালিটি যা কোটি মানুষের আবেগ আকাঙ্খা উদ্দীপনাকে ধারণ করতে পারে। নিম্ন মাঝারী হীনমন্য নেতৃত্বের কোন জায়গা নেই সেখানে। লেনিন পেরেছিলেন, চে পেরেছিলেন, মাও সে তুং পেরেছিলেন। কারণ, তারা হীনমন্য ছিলেন না। মজার বিষয় হল, উইকিপিডিয়াতে ‘personality cult’ শব্দ দু’টো দিয়ে সার্চ করলে সেখানে‍ যে নামগুলো পাওয়া যায়, তার মধ্যে রয়েছে লেনিন, সুকার্নোর মতো মানুষদের নাম।

৭.
মাঝে মাঝে এও ভাবি, মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন যাঁরা, তাদের কত অংশ অর্থনীতির পাঠ নিয়েছিলেন আর কত অংশ গিয়েছিলেন স্রেফ ভালোবাসার তাগিদে নেতার ডাকে। সেই ভালোবাসা জাগিয়ে তুলতে একজন মানুষের মত মানুষের প্রয়োজন হয়, নেতার প্রয়োজন হয়। নেতা এবং মানুষের সেই দ্বিমূখী স্রোতময় ভালোবাসা একটি বিন্দুতে এক হলে কেবল তখনই সাড়ে সাত কোটি মানুষ এক সাথে গর্জে ওঠে, একটি দেশের জন্ম হয়।

৮.
বাংলাদেশে গত কয়েক দশকে আমরা নেতা বিশেষের একরকম ভক্ত সমর্থকগোষ্ঠী দেখতে পাই। ৭৫ এর পর থেকে একটি দীর্ঘ সময়‍‍ যে মানুষটির নাম উচ্চারণ করাও একরকম অসম্ভব ছিল, আজকে অবাক হয়ে দেখি তার নামে বিমান বন্দর হচ্ছে, সভা সমিতিতে জোর গলায় স্তাবক বাহিনী তার নানান গুণ কীর্তনে ব্যস্ত। সম্প্রতি, পত্রিকা মারফত জানতে পারি, যুদ্ধাপরাধের বিচারের দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে আজকাল নাকি নিজামী সাহেবও সেই স্তাবকদের দলে যোগ দিয়েছেন। আশ্চর্য নয়? কারণ, সম্ভবত তার মতো এক নিকৃষ্ট যুদ্ধাপরাধীও জানে যে এই দেশের অনেক মানুষের কাছে ‘মুক্তিযুদ্ধ’ এবং ‘বঙ্গবন্ধু’ শব্দ দু’টি অবিচ্ছিন্ন এবং প্রায়-সমার্থক। যেমন, সেলিনা হোসেন বলেছিলেন – ‘বঙ্গবন্ধুর নামে বাংলাদেশের ইতিহাসের দুয়ার খুলে যায়’।

এরকম একটি সময়ে এর পাশাপাশি আমরা এও দেখছি বঙ্গবন্ধু এবং তার পরিবারের বিরুদ্ধে কিছু সুপরিকল্পিত মিথ্যে অভিযোগ এখনো সমান গতিতে বহমান। এমনকি তিনি স্বাধীনতার ঘোষণা করেছেন কিনা, কিংবা তা আদৌ চেয়েছিলেন কিনা, সেটি নিয়েও প্রশ্ন ওঠে, এমনকি সুপ্রীম কোর্টে মামলা পর্যন্ত হয়! এই দেশে রাতারাতি শেখ মুজিবের স্তাবক বাহিনী দাঁড়িয়ে গেছে – একথা সত্য। কিন্ত সেই সত্যের সাথে গত ৩৯ বছর ধরে এই মানুষটিকে নিয়ে যে সুপরিকল্পিত মিথ্যাচার হয়ে এসেছে সেই সত্যটি মিথ্যা হয়ে যায় না। ১৯৭১ এর স্বাধীনতা যুদ্ধের পরাজিত শক্তি তো বটেই, প্রগতিশীলদের একাংশের সক্রিয় সমর্থনে, কখনো নিরবতায়, বিস্মরণে এর অপ্রতিরোধ্য বিস্তার হয়েছে। প্রতিষ্ঠিত সত্যের রূপ পেয়েছে মিথ্যেগুলো। বাটারফ্লাই এফেক্ট এর মতো এর প্রভাব পড়েছে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনায়। আমি আমার ক্ষুদ্র সামর্থে‍‍ যখনই পেরেছি এর প্রতিবাদ করেছি, পাল্টা প্রশ্ন করেছি। কখনো করেছি যে দেশটির আলো হাওয়ায় জীবনের শ্রেষ্ঠ সময়গুলো পার করেছি তার সঠিক ইতিহাস জানবার দায় থেকে, স্বাধীন দেশে একটি দীর্ঘ সময় এই দেশটির স্রষ্টার নাম উচ্চারণ করতে না পারার গ্লানি থেকে, মনুষ্যত্বের দায় থেকে এবং বলতে সংকোচ নেই – ভালোবাসার দায় থেকে। আমার কিংবা আমার মতো কয়েকজনের এই ক্ষুদ্র প্রতিবাদের উদ্দেশ্য বঙ্গবন্ধুর স্তাবক বাহিনীর দুর্নীতি, ছাত্রলীগের পান্ডাদের তান্ডব আর আওয়ামী লীগের ব্যার্থতাগুলো থেকে দায়মুক্তি ঘটানো নয়। এটি মনে রেখে যে, ভালোবাসা আর অন্ধ আনুগত্য এক জিনিস নয়, যে অন্ধ আনুগত্যে পড়ে পুরো একটি জার্মান জাতি কয়েক কোটি মানুষকে নির্বিচারে হত্যা করতে তাদের নেতাকে সমর্থন জোগায়।

৯.
ভাবছি এতে আমার গায়ে কি লেবেল সাঁটা যায়? কেউ হয়তো বলবেন কট্টর আওয়ামী পন্থী, কেউবা বলবেন অন্ধ মুজিব ভক্ত। যে যাই বলুক তাতে আমার বয়েই গেল। বাংলাদেশ নামের দেশটির জন্মের এবং অভ্যুদয়ের সাথে যে মানুষটির নাম ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে, যেই দেশটির সাথে আমার নাড়ির যোগাযোগ, সেই দেশের সেই মানুষটির বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের প্রতিবাদ করতে গিয়ে যে কোন লেবেল মাথা পেতে নিতে রাজি আছি। এ হয়তো খুব সামান্য পরিসরে এক ধরণের ঋণ স্বীকার।

আহমদ ছফার কথা মনে পড়ে। ১৪ আগস্ট (১৯৭৫) এর রাতেও যিনি ছিলেন ফেরার, মুজিব আমলের আজীবন কঠোর সমালোচক সেই মানুষটি। অথচ মুজিবকে নিয়ে তাঁর গভীর ভালোবাসাপূর্ণ লেখাগুলোও তো আজ ইতিহাসেরই অংশ। তিনিই বলেছিলেন: বাঙালির শ্রেষ্ঠ কাব্য ‘বলাকা’ নয়, ‘সোনার তরী’ নয়, ‘গীতাঞ্জলি’ নয়; বাঙালির শ্রেষ্ঠ কাব্য ‘আর দাবায়ে রাখতে পারবা না’। [সূত্র]

তিনি আরও লিখেছেন :

আজ থেকে অনেকদিন পরে হয়ত কোন পিতা তার শিশুপুত্রকে বলবেন, জান খোকা! আমাদের দেশে একজন মানুষ জন্ম নিয়েছিল যাঁর দৃঢ়তা ছিল, তেজ ছিল আর ছিল অসংখ্য দুর্বলতা। কিন্তু মানুষটির হৃদয় ছিল, ভালবাসতে জানতেন। দিবসের উজ্জ্বল সূর্যালোকে যে বস্তু চিকচিক করে জ্বলে তা হল মানুষটির সাহস। আর জ্যোৎস্নারাতে রুপালি কিরণধারায় মায়ের স্নেহের মত যে বস্তু আমাদের অন্তরে শান্তি এবং নিশ্চয়তার বোধ জাগিয়ে তোলে তা হল তাঁর ভালবাসা। জান খোকা তাঁর নাম? শেখ মুজিবুর রহমান। (ছফা, খ. ৭, পৃ, ১৬২)

একেও বা কি বলা যায়? আহমদ ছফার মতিভ্রম? নাকি ক্ষণিকের দুর্বলতা?

অস্মিতা

"শুধু স্বপ্নহীন ক্ষোভে বসে থেকে থেকে, ঘুমে ঘুমে, আত্মগোপনে গোপনে ক্লান্ত। একটা কিছুকে উপলক্ষ করে আবার দাঁড়াতে চাই।"

23
আলোচনা শুরু করুন কিংবা চলমান আলোচনায় অংশ নিন ~

মন্তব্য করতে হলে মুক্তাঙ্গনে লগ্-ইন করুন
avatar
  সাবস্ক্রাইব করুন  
সাম্প্রতিকতম সবচেয়ে পুরোনো সর্বাধিক ভোটপ্রাপ্ত
অবগত করুন
নিরাভরণ
সদস্য
নিরাভরণ

খুব ভাল লাগল আপনার লেখাটা। আপনার ভালবাসাকে শ্রদ্ধা জানাই। আর লেখা থেকে এটাও বুঝলাম যারা সমালোচনা করেন তাদের সমালোচনা করার অধিকারকেও আপনি অশ্রদ্ধা করেননা হয়ত।

বাঙালির শ্রেষ্ঠ কাব্য ‘বলাকা’ নয়, ‘সোনার তরী’ নয়, ‘গীতাঞ্জলি’ নয়; বাঙালির শ্রেষ্ঠ কাব্য ‘আর দাবায়ে রাখতে পারবা না’।

এরপর আর কি বলার থাকতে পারে?

মোহাম্মদ মুনিম
সদস্য

অস্মিতা চে গুয়েভারার ভালবাসার ব্যাপারে যে বক্তব্যটি উদ্ধৃত করেছেন, সেটা আমিও অনেক দিন আগে আজিজ মার্কেটের কোন এক দোকানের পোস্টারে দেখেছিলাম। আমাকে তখন এই কথাগুলো বেশ ভাবিয়েছিল এবং এখনো ভাবায়। রাজনীতি করে অল্প কয়েকজনই তো ক্ষমতার স্বাদ পান, বাকিদের তো সারা জীবন রাস্তাতেই কাটাতে হয়। তৃতীয় বিশ্বের রাজনীতিবিদ হলে তো কথাই নেই, কথায় কথায় জেল, জেলে পুলিশের নির্যাতন, রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের হাতে যখন তখন খুন হয়ে যাবার ভয়, তারপরও তাঁরা রাজনীতি করেই যান। কিসের আকর্ষণে করেন? মানুষের প্রতি ভালবাসা থেকেই করেন। কেঊ আমি যে রাজনৈতিক আদর্শে বিশ্বাস করি সে রাজনীতি করেন, কেউ অন্য রাজনীতি করেন। কিন্তু যারা মানুষকে ভালবেসে রাজনীতি করেন,… বাকিটুকু পড়ুন »

সৈকত আচার্য
সদস্য

১। পোষ্টের বিষয় নির্বাচনটি ভালো লেগেছে। তার কারন,বিষয়টি সব সময়ের জন্যই বেশ গুরুত্বপূর্ন ছিল, অথচ বহুলালোচিত ছিলনা কখনো। অষ্মিতা আমাদের ভাবনার মধ্যে এটা নিয়ে এসেছেন। তাকে অভিনন্দন। ২। নির্মানে অষ্মিতা’র পোষ্ট একেবারেই হাতে গোণা। কিন্ত নির্মানে করা অষ্মিতা’র তীক্ষ্ণ-তীব্র মন্তব্যের সাথে বিলকুল পরিচিত আমি, হয়তো অন্যরাও। একজন সমালোচক হিসেবে নিষ্টার সাথে তলোয়ার উঁচিয়ে মাঠে নেমে পড়তে দেখা যায় তাকে, প্রায়শঃই। তাই বলে, তলোয়ার হাতে সবাইকে তিনি কচুকাটা করেন, তা বলছি না। ৩। অভিজিত যখন এই ব্লগে সমকামীতা নিয়ে লেখেন, তাকে তিনি কুর্ণিশ করেন। সাহসী লেখার জন্য অভিবাদন জানান। আবার ফারুক ওয়াসিফ যখন যুদ্ধাপরাধ নিয়ে বিভ্রান্তিকর অবস্থানে থেকে সাইকিয়াদের বিভ্রান্ত লেখনী… বাকিটুকু পড়ুন »

mosharrof
অতিথি
mosharrof

শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা ছিলেন এ নিয়ে বিতর্কের অবকাশ নেই। কিন্তু লেনিন, মাও সে তুং এমন কি চে’র সাথে কিভাবে লেখক শেখ মুজিবের তুলনা করলেন তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়। মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে আওয়ামী লীগের শাসনামলে শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে দেশ কিভাবে পরিচালিত হয়েছে সে সম্পর্কে লেখকের জানার কোন ত্রুটি থাকার কথা নয়। লেনিন, মাও সে তুং এর কাছ থেকে সমাজতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থা নির্মাণে ব্রতী সকলের শিক্ষণীয় অনেক কিছু আছে। কিন্তু শেখ মুজিবের মানুষের প্রতি ভালবাসা আর লেনিন, মাও সে তুং এর মানুষের প্রতি ভালবাসার ফারাক না বুঝে এক কাতারে চিন্তা করার মাঝেই শ্রেণী চিন্তার সীমাবদ্ধতা ধরা… বাকিটুকু পড়ুন »

mosharrof
অতিথি
mosharrof

সমাজতান্ত্রিক দেশসমূহের সংবিধানে সংশোধনী আনার ক্ষেত্রে দুই-তৃতীয়াংশ সমর্থন নিয়ে লেনিন, মাও সে তুং, ফিডেল ক্যাস্ট্রো জনবিরোধী কোন কোন পদক্ষেপ নিয়েছেন ? শেখ মুজিব তার শাসনামলে গৃহিত সংবিধানের মৌলিক নীতি পরিহার করে বাকশাল গঠন ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতা হরণ করেন। বিশেষ ক্ষমতা আইন করতেই পারা যেতো না যদি ২য় সংশোধনী না আসতো। শুধু তাই নয়, পরবর্তী সরকারগুলোর শাসনামলেও একইভাবে কালাকানুন জারি করা গিয়েছে ঐ সংশোধনী ব্যবহার করে। ‘৭২ এর সংবিধানের ১২ নং অনুচ্ছেদে ধমর্ভিত্তিক রাজনীতি ও রাজনীতিতে ধর্মের ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছিল যা ৫ম সংশোধনীতে বাতিল করা হয়। সংবিধানে এখন ১১ ন! অনুচ্ছেদ এর পরে ১৩ নং অনুচ্ছেদ পাওয়া যায়। ‘৭২ এর… বাকিটুকু পড়ুন »

মাসুদ করিম
সদস্য

শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা ছিলেন এ নিয়ে বিতর্কের অবকাশ নেই। কিন্তু লেনিন, মাও সে তুং এমন কি চে’র সাথে কিভাবে লেখক শেখ মুজিবের তুলনা করলেন তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়। — ভালোবাসার জোরেই তুলনা করেছেন। লেনিন, মাও, চে–এর মতো মুজিবও মানুষকে ভালোবেসে ছিলেন। মানুষের ভালোবাসা পেয়েছিলেন। অস্মিতা এই পোস্টে আমাদেরকে এই সহজ ভালোবাসার সূত্রই তো ধরিয়ে দিতে চেয়েছেন। ভালোবাসা সত্যিই এমন সহজ। এই সহজ সূত্রেই আমরা ফজলুল হক, ভাসানী, মুজিব, মণি সিংহকে ভালোবাসি। তারা বাংলাদেশকে ভালোবেসে ছিলেন, আমরাও তাদেরকে ভালোবাসি। আমি লেখকও নই। নির্মাণ গ্রুপ এ আছি বলেই মতামত রাখছি। — মতামত ব্যক্ত করতে তো লেখক হতে… বাকিটুকু পড়ুন »

mosharrof
অতিথি
mosharrof

@ মাসুদ করিম, বামপন্থীদের একটি অংশ বাকশালে নিজেদের বিলিন করে দিয়েছিলেন। এবং শেখ মুজিবের বন্দনা গান এ রকম বামপন্থীদের সংখ্যাটাই এখনো বেশি। বাসদ এক্ষেত্রে ভিন্ন চিন্তা ধারণ করে। সামগ্রিকভাবে শেখ মুজিবকে বিশ্লেষণ করার জ্ঞান-গরিমা আপনাদের মতো আমার নেই। তথ্য-উপাত্তের ভারে আক্রান্ত করার সামর্থ্যও আমার নেই। কিন্তু ইনটুয়েশন বলে একটা কথা আছে। বামপন্থীদের বিরোধিতা করা আর বাসদের বিরোধিতা করা এক নয়। এমন বামপন্থী দল বাংলাদেশে ক্রিয়াশীল যাদের মতামত লেখকের সাথে মেলে। আমার রাজনৈতিক পরিচয় আপনাদের জানা। তা আমি আড়ালও করছি না। ভিন্নমত, প্রতিমত আসবে এই ভেবেই মতামতটা লিখেছিলাম। বলতে পারেন মৌচাকে ঢিল ছুঁড়েছি। লক্ষ্যটাও অব্যর্থ ছিল। এবং সুযোগ পেলে বাসদের বিরোধিতা… বাকিটুকু পড়ুন »

mosharrof
অতিথি
mosharrof

@ মাসুদ করিম, রাশিয়া ও চীন বিপ্লব এবং তদপরবর্তী সময়ে সোভিয়েত ইউনিয়ন ও চীনের সমাজব্যবস্থার নেতৃত্ব সম্পর্কে মার্কসবাদী হয়ে সমালোচনা কিংবা ভুল-ভ্রান্তি পর্যালোচনা করা হয়ে থাকে। এস ইউ সি আই (কমিউনিস্ট) এর চিন্তানায়ক কমরেড শিবদাস ঘোষের শিক্ষা থেকে এও আমরা জানি প্রকৃত মাকর্সবাদী দল গড়ে তুলতে হলে দলের অভ্যন্তরে দলের কার্যক্রম ও দলের নেতৃত্ব নিয়ে খোলামেলা আলাপ আলোচনার পরিবেশ থাকতে হবে। কিন্তু সবকিছুর উদ্দেশ্য সবর্হারা শ্রেণীর বিপ্লবী আন্দোলন তথা মানবমুক্তির সংগ্রামকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যকে সামনে রেখে করতে হবে। মাও সে তুং বলেছিলেন, শত্রুও যদি সঠিক সমালোচনা করে তবে তা থেকে শিক্ষা নিতে হবে। এসব নীতি থেকে বিচ্যুত হয়ে মার্কসবাদী… বাকিটুকু পড়ুন »

মোহাম্মদ মুনিম
সদস্য

আলোচনাটি ভালোবাসা বিষয়ক আলাপ থেকে খানিকটা দূরে সরে গিয়েছে বলে মনে হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর মত ‘মাঝারি মানের আধা সামন্তবাদী’ নেতার ভালবাসার সাথে লেনিনের মত মহান নেতার ভালবাসার কি করে তুলনা হতে পারে, সেটা নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু বা মহাত্মা গান্ধীর মত জাতীয়তাবাদী নেতাদের ব্যাপারে বামপন্থীদের এক ধরনের অবজ্ঞা আছে। জাতীয়তাবাদীরা কেবল মাঠ গরম করে ভারত বা বাংলাদেশ স্বাধীন করে পুঁজিবাদকে বাঁচিয়ে রেখেছেন। ব্রিটিশ বৃহৎ পুঁজিবাদী চলে গিয়ে ভারতীয় ক্ষুদ্র পুঁজিবাদীকে দেশ দিয়ে গেছে, একই ভাবে পশ্চিম পাকিস্তানী ২২ পরিবার চলে গিয়ে তাঁর জায়গাতে বাঙ্গালী কিছু ধনী পরিবারকে বসিয়ে দিয়ে গেছে। বঙ্গবন্ধু বা গান্ধী স্বাধীনতা নামের এই অর্থহীণ পরিবর্তন ঘটিয়েছেন,… বাকিটুকু পড়ুন »

মোশাররফ
অতিথি
মোশাররফ

রাশিয়ায় জার শাসনের অবসান ঘটাতে বলশেভিক আর মেনশেভিক উভয়েই একযোগে সংগ্রাম করেছিলো। কিন্তু জার উতখাত হওয়ার পর মেনশেভিকদের বিরুদ্ধে বলশেভিক বিপ্লব ঘটিয়ে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলো। বলশেভিকের নেতারাও শুরুতে লেনিনের সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের আহ্বানে সাড়া দেয় নি। কিন্তু এভাবেই রুশ বিপ্লব শ্রমিক শ্রেণীর নেতৃত্বে প্রথম সমাজ গঠন করে। যারা পুঁজিবাদী ব্যবস্থার উচ্ছেদের পরিবর্তে শুধু মুজিব শাসনামলের বিরোধিতা করে বাম আন্দোলনকে নানাভাবে বিপথগামী করেছে তাদের সাথে মুজিবভক্ত বামপন্থীদের পার্থক্য এটুকুই যে একদল বাম সুবিধাবাদী ধারা আর অন্যদল বাম হটকারী ধারার চর্চা করেছে এবং বাম আন্দোলনকে পিছিয়ে দিয়েছে। এখানে বাম আন্দোলনের সঠিকতা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে না বরং বুর্জোয়া নেতৃত্বের দুর্বলতা যে পুঁজিবাদী ব্যবস্থা বহালের… বাকিটুকু পড়ুন »

mosharrof
অতিথি
mosharrof

@ অলকেশ, বামপন্থীদের সে সময়ের দুর্বলতার ব্যাপারে বাসদ প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে একটা বক্তব্য দলিল আকারে উপস্থাপন করা হয়। এটা ওয়েবসাইটেও দেখতে পারেন। আর নিজেদের সমালোচনার ক্ষেত্রে দৃষ্টভঙ্গি গড়ে তোলার জন্য কিছু লেখা কর্মীদের পড়ানো এবং অনুশীলনের চেষ্টা হয়। নিশ্চয় তাকে আমরা যথেষ্ট বলতে পারি না। বাসদের সারাদেশের প্রতিনিধিত্বশীল নেতৃবৃন্দের কেন্দ্রীয়ভাবে ৪ মাস অন্তর, জোন ও জেলা এবং স্তরে স্তরে এ ধরনের আলোচনার বিধান আছে। প্রশ্নহীন নিবেদন সঠিকতার প্রতি থাকা দরকার যা আমরা ব্যক্তিগতভাবে অনেকে রাখতে পারি না। গোটা সমাজেই একটা অন্যায় সমঝোতার ভিত্তিতে সবকিছু পরিচালিত হচ্ছে ; প্রকৃত বাম আন্দোলন সে উপায়ে গড়ে উঠবে না। কিন্তু বামপন্থার প্রতি এখনো আস্থাশীল বলেই… বাকিটুকু পড়ুন »

মোহাম্মদ মুনিম
সদস্য

১৯৯৪ সালে বাংলাদেশে ব্লাসফেমী আইন চালু করা নিয়ে কথা উঠেছিল, তৎকালীন বিএনপি সরকার জামাতকে খুশি করার জন্য এই আইন চালু করার উদ্যোগ নিয়েছিল। তখন বাসদ দ্রুত এই আইনের বিরোধিতা করে জনসভার আয়োজন করে। সেদিন জামান ভাইয়ের (খালেকুজ্জামান) বক্তৃতা চমৎকার লেগেছিল। তিনি অত্যন্ত সহজভাবে বুঝিয়ে দিয়েছিলেন এই আপাত নিরীহ আইনটি কি ভয়ংকর ভাবে ব্যবহার করা হতে পারে। বাসদ কেন্দ্রীয় অফিসে গিয়ে জামান ভাই সহ অন্যান্য নেতাদের অত্যন্ত সাধারণ (Spartan life ই বলা চলে) জীবন যাপন করতে দেখেছি। অন্যান্য নেতা আর কর্মীরাও (যারা ফুলটাইম কর্মী নন) কোন ব্যক্তিগত স্বার্থে রাজনীতি করেন না, মাঠে ময়দানে অত্যন্ত পরিশ্রম করে তাঁরা কাজ করেন। বাংলাদেশে যেখানে… বাকিটুকু পড়ুন »

mosharrof
অতিথি
mosharrof

@ মোহাম্মদ মুনিম,
স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে এ ধরনের বক্তব্য কমরেড খালেকুজ্জামান দিয়েছেন এর রেফারেন্স দেয়া দরকার ছিল। জামায়াতে ইসলামী ইসলামকে ব্যবহার করে রাজনীতি করে, যা নিষিদ্ধ করার দাবি করে বাসদ। সেখানে তাদের কোন রাজনৈতিক অবস্থান যতোই জনগণের পক্ষে আছে মনে হোক না কেন তা সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্যই। ফলে একে আন্দোলনে সহায়ক বলার কথা নয়।

mosharrof
অতিথি
mosharrof

শাহরিয়ার কবির কোথা থেকে এ কথা জানলেন তার রেফারেন্স বোঝাতে চেয়েছি। আওয়ামী লীগ না করলে সবাই জামাতের দোসর এভাবে যারা ভাবতে অভ্যস্ত তারা বাসদকে ও এভাবে দেখাতে চায়।
ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির আন্দোলনের সময়ে বাসদের গণআদালত প্রসঙ্গে বইতে জামাতের রাজনীতি সম্পর্কে পার্টি দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরেছে। প্রায় ১ লক্ষ কপি সে সময়ে সাধারণ মানুষের মাঝে বাসদ বিক্রি করে প্রচার করে।

mosharrof
অতিথি
mosharrof

@ মোহাম্মদ মুনিম,
আপনি এই রেফারেন্স দিয়ে কি বোঝাতে চেয়ছেন সেটি পরিস্কার নয়।
কথাগুলো আবার পড়লাম। মনে হলো আমি ভুল বুঝেছি হয়তো। কারণ, ধর্মভিত্তিক দল হলেও তাদের অংশগ্রহণ সমর্থন কিছু মানুষকে আন্দোলনে টেনে আনবে। সেক্ষেত্রে আদর্শগত ও সাংগঠনিকভাবে তাদের উন্মোচিত ও পরাস্ত করার কথাও বলা হয়েছে। এটার মাধ্যমে জামাতের রাজনীতিকে মহিমান্বিত করা হয়নি। বাস্তব পরিপ্রেক্ষিত তুলে ধরা হয়েছে। এভাবে বুঝলে আগের মন্তব্য হয়তো করতাম না।

  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.