প্রশ্ন, প্রশ্ন নিয়ে

আমি চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক কলেজের ১০ম শ্রেণীর ছাত্র নই। গত ২৪ জুন ২০০৯ তারিখে অনুষ্ঠিত ইসলাম শিক্ষার টিউটোরিয়াল পরীক্ষার প্রশ্নপত্রটি আমার নজরে পড়ার কথা ছিল না; তারপরও তার প্রথম পৃষ্ঠাটি এসে পৌঁছয় আমার হাতে, দিন কয়েক পর! [...]

আমি চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক কলেজের ১০ম শ্রেণীর ছাত্র নই। গত ২৪ জুন ২০০৯ তারিখে অনুষ্ঠিত ইসলাম শিক্ষার টিউটোরিয়াল পরীক্ষার প্রশ্নপত্রটি আমার নজরে পড়ার কথা ছিল না; তারপরও তার প্রথম পৃষ্ঠাটি এসে পৌঁছয় আমার হাতে, দিন কয়েক পর!

. . .

চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক কলেজ
টিউটোরিয়াল পরীক্ষা
দশম শ্রেণী
ইসলাম শিক্ষা
সময় : ৪০ মিনিট                    পূর্ণমান : ২৫

১। নিচের অনুচ্ছেদটি পড় এবং তৎসংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
নাফিজ এবং সুমন সিদ্ধান্ত নিল যে ১লা বৈশাখে তারা ধুতি পরবে ও কপালে তিলক পরবে। হৃদি ও শবনম পরিকল্পনা করল যে, তারা লাল পারের [পাড়ের] শাড়ীর সাথে কপালে মানানসই টিপ পরবে। তারা সারাদিন ডিসি হিলে সময় কাটাবে। তাদের প্রত্যেকের পিতা মাতা মুসলিম এবং তারাও নিজেকে মুসলিম হিসেবে পরিচয় দেয়।
ক) চার বন্ধুর কাজের পরিচয় দাও।                                                                ১
খ) মুসলিম হওয়া সত্ত্বেও তাদের এই ধরনের কাজ করার মূল কারণ কী?             ২
গ) মুসলমানগণ কিভাবে এই ধরণের কাজ থেকে নিজেদের বিরত রাখতে পারে? ৩
ঘ) কুফরের পরিণতি বর্ণনা কর।                                                                   ৪

২। নিচের অনুচ্ছেদটি পড় এবং তৎসংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
আল কুরআন অনন্ত জ্ঞানের উৎস। মানবজীবনের যাবতীয় সমস্যা ও জিজ্ঞাসার সমাধান কুরআন মাজীদে বর্ণিত আছে। মানুষের ইহকালীন, আধ্যাত্মিক ও কর্মজীবনের যা কিছু প্রয়োজস [প্রয়োজন] তার সবই পবিত্র কুরআনে বর্ণিত হয়েছে।
ক) আসমানী কিতাবের পরিচয় দাও।                                                        ১
খ) সহীফা কী? সহীফার সংখ্যা কত?                                                      ২
গ) মানব জাতীর [জাতির] নৈতিক চরিত্র গঠনে পবিত্র কুরআন মাজীদ কি [কী] শিক্ষা দেয়?     ৩
ঘ) আল-কুরআনের গুরুত্ব, মহাত্ব্য [মাহাত্ম্য] ও শ্রেষ্ঠত্ব মূল্যায়ন কর।                            ৪

[এই দুটি প্রশ্নের মান সাকুল্যে ২০; ৫ নম্বরের ৩য় আরেকটি প্রশ্ন নিশ্চয়ই পরের পৃষ্ঠার ছিল, যা আমি পাইনি।]

এই প্রশ্নপত্রের ধরণ দেখে বুঝতে অসুবিধা হয় না যে, এর লক্ষ্য শিক্ষার্থীর ‘কম্প্রিহেনশন’ বা ‘উপলব্ধির ক্ষমতা’ যাচাই করা। নিজেকে কল্পনায় চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক কলেজের ১০ম শ্রেণীর ছাত্রের ভূমিকায় দাঁড় করিয়ে উপলব্ধি করি যে, আমার ‘উপলব্ধির ক্ষমতা’ বহুলাংশে হ্রাস পেয়েছে!

২ নং প্রশ্নের ৪টি খণ্ডপ্রশ্নের উত্তর দিয়ে ১০-এর মধ্যে  হয়তো ৬/৭ পেয়ে যাব; কিন্তু যত গন্ডগোল ১ম প্রশ্নটি নিয়ে। এর ‘অনুচ্ছেদ’ অংশটির মর্মোদ্ধার করতেই গলদঘর্ম হবার উপক্রম! ‘তৎসংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর’ উত্তর খোঁজার আগে আমার জানতে ইচ্ছে করছে :
ক) কে এই প্রশ্নকর্তা?
খ) কারা এই প্রশ্নপত্রটি অনুমোদন করলেন?
গ) শিক্ষার্থীরাই-বা কী উত্তর দিল এসব প্রশ্নের?
ঘ) অভিভাবকদের প্রতিক্রিয়া কী ছিল?
ঙ) ধর্মীয় শিক্ষার নামে/পরিবর্তে শিক্ষাঙ্গনে এ ধরনের সাম্প্রদায়িক ভেদবুদ্ধির চর্চাকে আমরা কীভাবে ব্যাখ্যা করব? এর সম্ভাব্য প্রতিকারই-বা কী?

রেজাউল করিম সুমন

একজন সামান্য পাঠক।

৩৬ comments

Have your say

  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.