সভ্য বিশ্বের নতুন ডাম্পিং গ্রেভইয়ার্ড — চট্টগ্রামের ভাটিয়ারি _ জাহাজভাঙ্গার ভাগাড়ে মানুষ আর প্রকৃতির নিদারুণ বিপর্যয়!!

006c8awe1 ভয়াবহ কঙ্কালমুখ হা করে আছে!
ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইলের এই দেশটিতে যেদিকে তাকাই শুধু মানুষ আর মানুষ। আজ থেকে চার দশক আগের চোখ দিয়ে দেখি কেবলই গ্রেভইয়ার্ড । একটা নিরীহ গোবেচারা ধরনের সমাজ এখন ক্ষুব্ধ ক্রূর! গাছগাছালিময় আনআরবান প্রায় গ্রাম্য ঢাকা এখন কসমোপলিটান। আরবানাইজড। সাঁই সাঁই করে হাইরাইজ দাঁড়িয়ে গেছে। ঝাঁচকচকে জেল্লা আর বিত্ত-বৈভবের প্লাবনে জঞ্জালময় ঢাকার রাজপথ প্লাবিত। চারিদিকে সুখের পায়রা পতপত করে উড়ছে। সুখ,স্বস্তি আর শান্তির দেবদূতেরা ডলার-পাউন্ডের ভেলায় চরে এই দেশে নেমেছে। তাদের শুভাগমনে সারা দেশে দুধের নহর আর ক্ষীরের পাহাড় গড়ে উঠেছে! সেই নহর আর পাহাড়ের কোণায় শেয়াল-কুকুরের মত একজিস্ট করে চলেছে কিছু পোকামাকড়! খুব কাছে গিয়েই শুধু ঠাওর করা যায়-তারা মানুষ! হোমো স্যাপিয়েন্স! এদেরকে ডাম্প করে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এগুনোর খতিয়ান রাখায় ব্যস্তসমস্ত হচ্ছেন পরিসংখ্যানবিদগণ। ডাটাবেজে ডিজিট উঠছে…..জিডিপি-সাড়ে পাঁচ! কিছু দিন পরেই ছয়…সাত!

দেশকে সাঁই সাঁই করে টার্বো গতিতে এগিয়ে নেওয়ার প্রধান কারিগর ধরা হয় তৈরি পোশাক শিল্পকে। আসলেই, কি দেয়নি এই গার্মেন্ট? একটা রাইজিং ক্লাস দিয়েছে, যারা কর্পোরেট কালচারকে ”সর্বজনগ্রাহ্য” করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। একটা বিশাল সংখ্যক হা-ভাতে আনস্কিল্ড শ্রমিককে খাওয়া-পরা দিয়েছে। পথের ধারের টাউট-বাটপাড়দের প্রায় বিনে পয়সায় নারী সম্ভোগের সুযোগ দিয়েছে! তালাসংস্কৃতি চালু করে ইঁদুরের মত পুড়িয়ে মানুষ কমানোর ত্বরিকা দিয়েছে। আর সরকারকে বুকে আঙ্গুল ঠুকে এত কোটি ডলার রেমিট্যান্স মওজুদ দেখানোর ক্ষমতা দিয়েছে। এত দেওয়ার পরও এই হতভাগা হা-ভাতে জাতির শনৈ শনৈ উন্নতির চাকায় আরো খানিকটা মবিল দিয়ে আরো সচল করার জন্য এবার চালু হয়েছে জাহাজ ভাঙ্গা শিল্প। এবার এই নতুন শিল্পের ল্যাজ ধরে পাপী-তাপী সব স্বর্গে পৌঁছে যাবার নিষ্কন্টক পথও পেয়ে যাব আমরা!

“বছরে হাজার কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের অপার সম্ভাবনা আছে জাহাজ নির্মাণ শিল্পে। বিশ্ববাজারে বর্তমানে ৪০ হাজার কোটি ডলারের বাজার উন্মুক্ত রয়েছে। এর মধ্যে ৪০০ কোটি ডলারের বাজারও যদি বাংলাদেশ ধরতে পারে, তাহলে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার বাড়বে ২ থেকে ৩ শতাংশ। কর্মসংস্থান হবে লক্ষাধিক দক্ষ ও অদক্ষ বেকার যুবকের। একটি সুষ্ঠু নীতিমালা করেই সরকার বদলে দিতে পারে জাহাজ নির্মাণ শিল্পের চিত্র। আর এটি সম্ভব হলে এ শিল্পের উদ্যোক্তারা উন্নয়নের পরশ দিয়ে পাল্টে দিতে পারবেন দেশের সামগ্রিক অর্থনীতির চেহারা। এই শিল্পের বিকাশে সব ধরনের সম্ভাবনা ইতিমধ্যে সৃষ্টি হয়েছে। এ খাতে আন্তর্জাতিক নজরও পড়েছে বাংলাদেশের প্রতি।”

ব্যাস! আর আমাদের চিন্তা নাই! আমাদের জিডিপি এবার একলাফে ৮এ উঠে যাবে। চট্টগ্রামের টাকা ম্যাগলেভ ট্রেনে চেপে ঢাকায় এসে ফ্লাইওভারের উপর দিয়ে সাঁই সাঁই করে আমাদের ঘরে ঘরে পৌঁছে যাবে। আমরা রাতারাতি এলডিসি থেকে পৌঁছে যাব ডেভেলপিং কান্ট্রিতে। এই পরাবাস্তব স্বপ্ন দেখার পরেও পাওয়া যাবে। তার আগে দেখা যাক ইউরোপিয়ান দেশগুলো যেমন, ডেনমার্ক, জার্মানি, নেদারল্যান্ড, ফিনল্যান্ড ও সিঙ্গাপুর কেন আমাদের দেশে জাহাজ নির্মাণে আগ্রহ দেখাচ্ছে? ইউরোপিয়ান দেশগুলো তো নিজেরাই বছরের পর বছর জাহাজ নির্মাণ শিল্পে পৃথিবীর সেরা। গত প্রায় এক শতাব্দীধরেই তো তারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জাহাজ, ফেরি বোর্ট, টাগ বোট রপ্তানি করে আসছে, এখন কি এমন হলো যে তারা আমদানী করতে চাইছে? তাদের কারখানাগুলোকি বাঁজা হয়ে গেছে? নাকি তারা সব ভুলে গেছে? না। সবই ঠিক আছে।

তারা তাদের দেশের গণতন্ত্রের প্রতি শ্রদ্ধাশীল এবং দায়বদ্ধ। তাই তাদের নিজের দেশের মানুষদের দিয়ে যে অমানবিক এবং বিপজ্জনক কাজ করাতে পারে না তা-ই আমাদের মত লেস ডেভেলপ্ড দেশে করিয়ে নেয়। তাদের পারমানবিক বর্জ্য জাহাজে ভরে সারা ইউরোপের কোথাও ফেলতে পারেনা। গ্রীণপিস কর্মীরা তেড়ে আসে। সেই সব জাহাজ একসময় এসে ভেড়ে এই বাংলাদেশে। মারাত্মক বিষাক্ত পারমানবিক বর্জ্য, বিষাক্ত রাসায়নিক, টক্সিন, প্রাণঘাতি যৌগ ডাম্প এবং রিসাইক্লিং করার মোক্ষম জায়গা এই বাংলাদেশ, কেননা এখানে সস্তায় মানুষ মেলে! নামমাত্র দামে এই যুগেও দাস পাওয়া যায়! এরা ঝাঁকে ঝাঁকে মরলেও তেমন কোন সামাজিক প্রতিবাদের মুখোমুখি হতে হয়না। বড় অংকের ক্ষতিপূরণ দিতে হয়না।

ভাটিয়ারী। এমনিতেই এক দুর্গম্য স্থান। এখানে মিলিটারী একাডেমী হওয়ায় এর আশেপাশে সবার জন্য অবারিত নয়। এই ভাটিয়ারীতেই গড়ে উঠেছে জাহাজ ভাঙ্গার গ্রেভইয়ার্ড! জায়গাটা আপাতদৃষ্টে বাংলাদেশের মনে হলেও প্রকারান্তর “নোম্যানস ল্যান্ড”! এখানে সাধারণ মানুষ তো বটেই কোন সাংবাদিকের প্রবেশ নিষেধ। বাছাইকৃত এবং মুচলেকা দেওয়া শ্রমিক, মালিক, মালিকের পোষ্য আর বেনিফিশিয়ারী ছাড়া আর কারোই এখানে প্রবেশাধিকার নেই। বাংলাদেশ সরকারের কোন আইনও এখানে বলবৎ নয়! গত দুই দশক ধরে এই জাহাজ ভাঙ্গা ভাগাড়ে যা হচ্ছে তা শিউরে ওঠার মত। উন্নত দেশগুলোর যে সব বিষাক্ত পরিত্যক্ত জাহাজ তাদের কোন বন্দরে ভেড়ার সুযোগ পায় না সেই সব হ্যাজার্ড কার্গো চলে আসে বাংলাদেশে। ভাটিয়ারীর বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে তারা নোঙ্গর ফেলে বসে থাকে। কোন আধুনিক যন্ত্রপাতি, ব্রেকিং গিয়ার, ফাইটোস্যানেটারি সার্টিফিকেট, মুচলেকা, প্রাণহানির দায়বদ্ধতা ছাড়াই মাত্র ৪ হাজার থেকে ৫ শ টাকার শ্রমিক দিয়ে জাহাজ ভাঙ্গা শুরু হয়। এই পুরোনো –পরিত্যক্ত জাহাজ এক অদ্ভুত বিড়ম্বনা! একটা নতুন জাহাজ যেমন ওই মালিকের ইনভেস্টমেন্ট, তেমনি একটি পরিত্যক্ত জাহাজ তার গলার কাঁটা। সেটিকে কোথাও ডাম্প করার উপায় নেই! কোথাও নোঙ্গর করে দিনের পর দিন রেখে দেওয়ারও সুযোগ নেই। পুড়িয়ে ফেলাও যাবেনা। তাই তাকে সেটা ভাঙ্গতেই হবে। আর ভাঙ্গার জন্য বাংলাদেশ এখন বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম গ্রেভইয়ার্ড।

জাহাজভাঙ্গা শিল্প বিকাশের ফলে জাতীয় অর্থনীতিতে কি কি উন্নতির ছোঁয়া লেগেছে তা নিয়ে শিটের পর শিট ডাটা দিয়ে ডেভেলপমেন্ট গ্রাফ একে দেওয়া যায়, কিন্তু এই কাজে দেশের মানুষের কি কি ক্ষতি হচ্ছে, পরিবেশের কি কি ক্ষতি হচ্ছে, সত্যিকার অর্থে জাতীয় অর্থনীতিতে কতটুকু অবদান রাখতে পারছে সেই খতিয়ান কোথাও পাওয়া যাবেনা। এবার দেখি কি কি ডিজাস্টার ইতিমধ্যেই ঘটে গেছে, এবং এখনো ঘটে চলেছেঃ

SOS-arsenic.net জানাচ্ছে….. গত ১৮ বছরে “মাত্র” ৩০০ শ্রমিক মারা গেছে!(আমরা এই সংখ্যাকে গণায়ই ধরি না!)
Some 45,000 workers of the ship-breaking industry in Chittagong are now working in hazardous atmosphere risking life in handling of old equipment used to break ships and dealing with toxic chemicals in their daily routine work. In the absence of any protective measures at least 300 workers of the yards had so far died and about 550 were handicapped in accidents in harness in the last 18 years. At present the workers of 30 ship-breaking yards in Chittagong are working at high risk of accident particularly explosion of gas cylinder and oil tanker.
Sources said, one worker at a ship-breaking yard was killed and three others were injured in a gas explosion in a scrapped ship on April 9 this year at Shitalpur area under Sitakundu upazila in the district. The dead worker was the cutter man of the Lalbagh shipyard and identified as Sagar (21). The three injured were identified as Babul, Anwar and Suvash
In another workplace accident, two workers at a ship-breaking yard were killed and six others injured when they were struck by a scrapped steel plate in August last year at Kadam Rasul area under Sitakundu upazila. The two victims were the cutter men of Ahmad Mujtaba Steel Industry and identified as Humayun (28) and Md. Belal (30). Another worker Selim Uddin (28) died in a similar accident in July last year.

GreenPeace জানাচ্ছে Shipping industry must strip ships of toxic materials before sending them for scrapping
Highest court in Netherlands says scrap ship is toxic waste

June 19th 2002 – The Highest Court in the Netherlands, the Council of State in The Hague, has today ruled that a ship destined for scrapping in India which contains asbestos, heavy metals and other toxic materials, should be classified as toxic waste.

এই ধরণের বিষাক্ত জাহাজগুলি ইউরোপে ঠাঁই না পেয়ে চলে আসবে বাংলাদেশে। সস্তায় জাহাজগুলো ভাঙ্গার পর যার যার টাকা দিয়ে, টাকা নিয়ে চলে যাবে। রেখে যাবে বছরের পর বছর ধরে বিষাক্ত কেমিক্যালসের মরণ ব্যাধি। চেরনোবিল পারমানবিক বিষাক্ততার পাশ্বপ্রতিক্রিয়ায় এখনো সেখানে বিকলাঙ্গ শিশু আর প্রাণীর জন্ম হয়। আর এখানে জন্ম হবে বিশ্বের অভূতপূর্ব সব রোগব্যাধী আর ভাইরাস!!
Brain+Release_Valve সাইটটি বলছেঃ where immense ocean freighters and tankers are torn apart by hundreds of gritty, lean, strong, bronze-skinned, men–by manual labor. Using blow torches, sledgehammers and wedges they carve the mammouth steel whales into chunks just off shore. After the huge pieces crash into the water like glaciers calving, they are winched onto shore where they are cut up into bite-size pieces weighing hundreds of pounds then lifted and loaded by teams of guys–who sing in rhythm as they walk lock-step carrying the very heavy inch-thick steel plates–onto trucks to be sold (very profitably by the owners who live in huge mansions in town) as scrap metal across the country and Asia (with some reworked into ‘new’ ships).
Ship breaking is done from 7 AM to 11 PM (same crew) with two half hour breaks and an hour for lunch (supper is eaten after they go home at 11);
14 hours a day, 6-1/2 days a week (off half day Friday for Muslim observations). They are paid $1.25 per day.
কত টাকা প্রতি দিন? মাত্র ৮০ টাকার মত!

DEMOTIX news এর বর্ণনায়-Ship breaking Yard Chittagong : Darkness life of labors.
JAZJAZ.NET এর বর্ণনা এরকম: Hell on Earth – The Ship Breaking Yards of Alang and Chittagong

These hell holes are not just a killing ground for old vessels; thousands of hapless, but able-bodied young men have lost their lives doing back-breaking work in one of most hazardous working conditions in the world. Not only do they have to work without any basic safety equipment, they have to also endure prolonged exposure to toxic chemicals and waste matter during the course of work. Lung cancer and asbestosis is quite common among these poor souls কি অদ্ভুত ভাবে “গরিব আত্মার” করুণ মৃত্যু ঘটে চলেছে!

Click This Link এর খবরটা কি ভয়াবহ দেখুন :

The main Chittagong ship breaking area called Fauzdarhat is located on a 10-mile (16km) stretch of the Bay of Bengal that was once covered by a mangrove forest. It is the second-largest ship breaking operation in the world after Alang, India, employing around 100,000 people directly and indirectly. With a tidal flux ideal for the beaching of large vessels, Chittagong scraps around fifty percent of the world’s large-scale ships. Since the number of end-of-life tankers is expected to grow in coming years, this business and its hazards are also expected to rise.

Click This Link এই সাইটটির দেওয়া তথ্য আরো ভয়াবহ!
Shipbreaking Boom
The Freighter Graveyards of South Asia
By Joachim Hoelzgen
When times were good, shipping companies ordered huge numbers of new steel behemoths to ply the oceans. Now though, many of those same container lines are eager to get rid of their ships. The scrapping business in South Asia is booming.
The sandy beaches north of Chittagong in Bangladesh look like giant steel graveyards. Ships line the banks ready for dismantling. Others are so far disassembled that their hulls are all that is left protuding morosely from the water, according to shipping industry journal Lloyd’s List. All kinds of vessels get broken down here: bulk carriers, container ships, vehicle transporters and oil tankers.

আমাদের এখন অনেক টাকার দরকার! আমাদের ১৫ কোটি মানুষকে খাইয়ে-পরিয়ে বাঁচিয়ে রাখতে হচ্ছে, তাই আমাদের যেকোন উপায়েই হোক টাকা কামাতে হবে। পৃখিবীর সকল বিষাক্ত জাহাজ, ট্যাঙ্কার, ভেসেল আর পারমানবিক বর্জ্যবাহী জাহাজও আমরা ভেঙ্গেচুরে শিটের আকার দিয়ে দিতে পারি! তাতে আমাদের প্রাণের ছোঁয়া লাগানো সবুজ বেষ্টনি ধ্বংস করে, পরবর্তী প্রজন্মকে বিষাক্ত বর্জ্য দিয়ে পঙ্গু করে হলেও আমরা বাঁচতে চাই! বাঁচার জন্য আমাদের এলিটরা আমাদের গার্মেন্ট দিয়েছে, বিষাক্ত চামড়া প্রক্রিয়াজাত করণের ট্যানারি দিয়েছে, এখন দিয়েছে জাহাজ ভাঙ্গার কাজ। একাজ করেই আমরা বছরে ৪০ হাজার কোটি ডলারের বাণিজ্য করতে পারব । এখানকার শ্রমের রক্ত-ঘামে-মৃত্যুতে মাখানো ষ্টিল শিট দিয়ে আমরা জাহাজ বানিয়ে ইউরোপে রপ্তানি করে ওই ৪০ হাজার কোটি ডলারের বাজার ধরতে পারলে বাংলাদেশকে আর পায় কে? কোরিয়া-জাপানকেও পেছনে ফেলে দিলাম বলে……..!!

কিন্তু আমরা দেখেছি এই শিল্প হোক আর গার্মেন্ট হোক, ভাগ্য বদলেছে ওপর তলার এলিটদের, তাদের চামচাদের, বরকন্দাজদের, মধ্যস্বত্তভোগী দালালদের আর সরকারের বিভিন্ন দপ্তর, ব্যাংক-বীমা এবং এই সংক্রান্ত বেনিফিশিয়ারীদের। ১.২৫ ডলারের শ্রমিক আঠারো বছর আগেও যে অশিক্ষিত আনস্কিলড ডেইলি লেবার, এখনো সে সেই অবস্থায়, একই ভাগ্যবিড়ম্বনা নিয়ে ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করার জন্য কোন এক অপার্থীব নির্দেশে ছুটে চলেছে! বঙ্গোপসাগরের নোনা জলে চোখের নোনা জল মিশে একাকার হয়ে যাচ্ছে…..কিছুতেই আলাদা করে বোঝানো যাচ্ছেনা যে ওইটুকু আমাদের চোখের জল! আমাদের শরীরের ঘাম! আমাদের ধোঁয়াটে ভবিষ্যৎ!

bangladesh-chittagong-ship-breakingএক সময়ের সবুজ উপকুলের এখনকার হাল!
pd2349864এমন মৃত্যু নিয়ত সাথী!
57685862._REU042003ওরা কি জানে এর মধ্যে কি আছে?

আগুনের শিখায় নাম না জানা গ্যাসের উদ্গিরণ!

আগুনের শিখায় নাম না জানা গ্যাসের উদ্গিরণ!


এই ছেলেগুলির বয়স কত?

এই ছেলেগুলির বয়স কত?

কৃতজ্ঞতা এবং দায় স্বীকারঃ
গ্রান্ড থিফ ইকোনমিকস
আরবান ইমার্জেন্সিস
এনভায়োরনমেন্টাল ডিজাস্টার
রাইট বাংলাদেশ – র’ডিল ফর শিপব্রেকিং …..
গ্লোবাল গে’জ ডট কম
দক্ষিণ এশিয়ার গ্রেভইয়ার্ডস

মনজুরাউল

আমাদের মাতৃগর্ভগুলি এই নষ্ট দেশে চারদিকের নিষেধ আর কাঁটাতারের ভিতর তবু প্রতিদিন রক্তের সমুদ্রে সাঁতার জানা হাজার শিশুর জন্ম দেয় যারা মানুষ......

25
আলোচনা শুরু করুন কিংবা চলমান আলোচনায় অংশ নিন ~

মন্তব্য করতে হলে মুক্তাঙ্গনে লগ্-ইন করুন
avatar
  সাবস্ক্রাইব করুন  
সাম্প্রতিকতম সবচেয়ে পুরোনো সর্বাধিক ভোটপ্রাপ্ত
অবগত করুন
রায়হান রশিদ
সদস্য

বেশ অনেক দিন আগে এই বিষয়ে “না বলা কথা”-য় সুবিনয় মুস্তফীর একটি লিন্কবহুল পোস্ট প্রকাশ হয়েছিল, “জাহাজের গোরস্থান – সীতাকুন্ড, চট্টগ্রাম” শিরোনামে। এতে ছিল জাহাজ-ভাঙ্গা নিয়ে দেশ বিদেশের বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ লিন্ক। তথ্যবহুল এই পোস্টটির কিছু কিছু অকেজো লিন্ক মেরামত করে নিয়ে পুরোটাই নীচে তুলে দেয়া হল মুক্তাঙ্গনের পাঠকদের জন্য। আশা করি সুবিনয়ের আপত্তি হবে না এতে। ===== — চট্টগ্রামের শিপব্রেকিং ব্যবসা প্রায়ই বিদেশের গণমাধ্যমে নেতিবাচক প্রচার পায়। কিছুদিন আগে মার্কিন টিভির সিবিএস চ্যানেলে 60 Minutes শীর্ষক সংবাদ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এটা আবার শিরোনামে এসেছে। (সম্পূর্ণ ভিডিও এখানে।) রিপোর্টার বব সাইমন। — এ ছাড়াও গত দুই দশক ধরে বেশ কিছু নামকরা… বাকিটুকু পড়ুন »

মোহাম্মদ মুনিম
সদস্য

এই লেখাটিতে জাহাজ নির্মাণ শিল্প এবং জাহাজ ভাঙ্গা শিল্প, এই দুটি শিল্পের কথা বলা হয়েছে। 800 বিলিয়ন ডলারের শিল্পটি জাহাজ নির্মাণ শিল্প, জাহাজ ভাঙ্গা শিল্প নয়। বর্তমানে দক্ষিণ কোরিয়া এই শিল্পে শীর্ষস্থানে আছে এবং বাংলাদেশ এই খাতে একটি উদীয়মান রাষ্ট্র। আমার মতে এটি একটি ইতিবাচক দিক। জাহাজ নির্মাণ একটি শ্রমঘন শিল্প। আমাদের বিপুলসংখ্যক কর্মহীন তরুনদের মালয়েশিয়ার জঙ্গলে না পাঠিয়ে প্রশিক্ষনের মাধ্যমে এই জাহাজ নির্মাণ শিল্পে ব্যবহার করা যায়।

মোহাম্মদ মুনিম
সদস্য

ইন্টারনেট এ ঘাঁটাঘাঁটি করে যা বুঝলাম, তাতে মনে হচ্ছে বাংলাদেশের জাহাজ ভাঙ্গা ইস্পাত রি রোলিং করে দেশের নির্মাণ শিল্পে প্রধানতঃ ব্যবহার করা হচ্ছে। জাহাজ নির্মাণে যে ধরনের ইস্পাত ব্যবহার হয়, নির্মাণ শিল্পে সেই ইস্পাত গ্রহণযোগ্য হবার কথা নয় (কার্বনের অনুপাত, কাঠিন্য, যে তাপমাত্রাতে ইস্পাত রোল করা হয় ইত্যাদি ইত্যাদি)। বাংলাদেশে যেহেতু নিয়ম কানুনের কোন বালাই নেই (বিএসটিআই এর সিল ঘুষ দিলেই মেলে) জাহাজ ভাঙ্গা ইস্পাত আধা খেঁচড়া রি রোলিং করে নির্মাণ শিল্পে দেদারসে ব্যবহার হচ্ছে। এখন জাহাজ ভাঙ্গা শিল্পকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশে বেশ একটা ইস্পাত শিল্প দাঁড়িয়ে গেছে। জাহাজ ভাঙ্গা কোম্পানীগুলোই (যেমন পিএইচপি গ্রুপ) ইস্পাত রি রোলিং ব্যাবসাতে শত শত… বাকিটুকু পড়ুন »

আবু নঈম মাহতাব মোর্শেদ
সদস্য

জাহাজ ভাঙ্গা শিল্প এলাকার স্হানীয় দু একটি পরিবার, যারা প্রভাবশালী এবং এ শিল্পের সাথে জড়িত তাঁরা তাঁদের এলাকার পরিবেশ বিপর্যয়ে মোটেই ভাবিত নন, তাঁরা বলতে চান পরিবেশ দিয়ে কি হবে টাকাতো পাচ্ছি। পরিবেশ রক্ষা, শ্রমিকের স্বার্থরক্ষা করবে সরকার, কারণ সরকারকে ট্যাক্স দেয়া হচ্ছে।

ইমতিয়ার শামীম
সদস্য

তিন বছর মেয়াদী আমদানী রফতানি নীতিমালা অনুমোদন করা হয়েছে গত ২৭ সেপ্টেম্বরে। অর্থনৈতিক সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির এ বৈঠকে জাহাজ নির্মাণ শিল্পকে আখ্যায়িত করা হয়েছে নতুন থ্রাস্ট সেক্টর হিসেবে। এটি জাহাজ ভাঙার বিপরীত সংবাদ হলেও ফল বোধকরি একই রকম।

সুদীপ্ত শর্মা
সদস্য

দরকারি পোস্ট। আপনাকে ধন্যবাদ।

রায়হান রশিদ
সদস্য

বিডিনিউজ-২৪ এর খবর। সময়াভাবে অনুবাদ করা গেল না। খেলোয়াড়দের নাম ধাম লিপিবদ্ধ থাকুক এখানে। পরে প্রয়োজন পড়তে পারে। Shipbuilders say industry lacks incentives Narayanganj, Oct 25 (bdnews24.com)—Shipbuilders on Sunday sought incentives for a boost to the industry. “We need a 30 percent incentive for the industry for at least five years,” Abdullahel Baki, chairman of Ananda Shipyard, the country’s leading shipbuilder, said in a seminar. “The government needs to patronise this burgeoning sector to foster its growth.” Addressing the seminar, shipping minister Shahjahan Khan said the industry has as much potential to become a top industry as the garment sector.… বাকিটুকু পড়ুন »

মোহাম্মদ মুনিম
সদস্য

জাহাজভাঙ্গা শিল্প নিয়ে আইন হচ্ছে (প্রথম আলোর রিপোর্ট, ডিসেম্বর ৭, ২০০৯) জাহাজভাঙা শিল্পকে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। শ্রমিকদের নিরাপত্তা, পরিবেশ ও সরকারি রাজস্ব আহরণের অন্যতম ক্ষেত্র নিশ্চিত করতে সরকার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) প্রতিনিধি পানুডা বনপানা গতকাল রোববার নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানের সঙ্গে সাক্ষাত্ করলে এ কথা জানানো হয়। সাক্ষাত্কালে আলোচনা সম্পর্কে মন্ত্রী পরে সাংবাদিকদের জানান। নৌপরিবহনমন্ত্রী জানান, সমুদ্রতীরবর্তী জায়গায় অনেক শিপ ব্রেকিং (জাহাজভাঙা) ইয়ার্ড রয়েছে। এসব ইয়ার্ডে কর্মরত প্রায় চার লাখ শ্রমিক কীভাবে কাজ করবে তারও প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। শ্রমিকদের জীবনের নিরাপত্তা, বেতন সুবিধাসহ এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত মালিকদের স্বার্থ সংরক্ষণ করেই আইন করা হবে। এ জন্য… বাকিটুকু পড়ুন »

মোহাম্মদ মুনিম
সদস্য

ইউরোপে দুই হাজার ১৭২ পুরোনো ও বিষাক্ত জাহাজ – প্রধান ক্রেতা বাংলাদেশ (প্রথম আলোর রিপোর্ট, ডিসেম্বর ২৮, ২০০৯) ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) দেশগুলোর মেয়াদোত্তীর্ণ ও বিষাক্ত জাহাজের প্রধান ক্রেতা হতে চলেছে বাংলাদেশ। কার্বন নিঃসরণ ও দুর্ঘটনার ঝুঁকি কমাতে ২০১২ সালের মধ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলো তাদের দুই হাজার ১৭২টি মেয়াদোত্তীর্ণ ও বিষাক্ত জাহাজ বিক্রি করে দেবে। সূত্র বলছে, এর বড় অংশের ক্রেতা হতে যাচ্ছেন বাংলাদেশের জাহাজভাঙা-শিল্পের ব্যবসায়ীরা। চলতি বছর বিশ্বের পুরোনো জাহাজের অর্ধেকই বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা কিনেছেন। ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম অর্গানাইজেশনের (আইএমও) বাধ্যবাধকতা অনুযায়ী, এই জাহাজগুলো বিক্রি করে দেওয়ার জন্য সদস্যরাষ্ট্রগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে ইইউ। কিন্তু মারাত্মক পরিবেশদূষণের আশঙ্কায় বিশ্বের বেশির ভাগ পুরোনো জাহাজের ক্রেতা-দেশ… বাকিটুকু পড়ুন »

trackback

[…] মনজুরাউল, সভ্য বিশ্বের নতুন ডাম্পিং গ্রেভইয়ার্…, মুক্তাঙ্গন, ১৯ সেপ্টেম্বর […]

trackback

[…] মনজুরাউল, সভ্য বিশ্বের নতুন ডাম্পিং গ্রেভইয়ার্…, মুক্তাঙ্গন, ১৯ সেপ্টেম্বর […]

  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.