মুসলিম বাম এখানকার মুসলিম মধ্যবিত্তের একটা ছোট্ট অংশ। একই রকমভাবে শিল্প ও জীবন থেকে অনেক দূরে। ফজলুল হকের প্রচেষ্টায় যে মুসলিম মধ্যবিত্তের জন্ম, মাঝখানে এক তীব্র আন্দোলনমুখর সময় কাটিয়ে পাকিস্তানের কাছ থেকে স্বাধীনতা ছিনিয়ে নিয়ে সে একটি দেশের অধিকারী হয়ে গেল, তারপর জিয়াউর রহমানের পকেট থেকে বের হল নবযুগের মুসলিম বাম। এদের সকলেরই দীক্ষাগুরু হয়ে রইলেন বদরুদ্দীন উমর। চিরনেতির নেতা উমরের না হয় দিনশেষ কিন্তু যারা মধ্য বয়েসী বা উদ্যমী তিরিশের অধিবাসী তারাও দেখি উমরতন্ত্রেই স্থিতধী। মুসলিম ধর্মে ঠিক বিশ্বাস না থাকলেও মুসলিম উম্মায় দেখি এদের টনটনে বিশ্বাস। মাঝে মাঝে আমি ভাবি বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের কালে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির শীর্ষপদটি মণি সিংহের হাতে ন্যাস্ত না থেকে একজন মুসলিম বামের হতে থাকলে হয়তো কোনো অপকাণ্ড ঘটে যেতে পারত। অনেকে তারকা কমিউনিস্ট হিসেবে মোহাম্মদ ফরহাদের নাম করেন, কিন্তু তিনি সিপিবির গণগৃহত্যাগের আগেই মাত্র ৪৯ বছর বয়সে যেহেতু মারা গেছেন তাই তাকে নিয়ে কোনো আলোচনা করে কোনো লাভ নেই। কারণ এরশাদের পতনের পর কমিউনিস্টদের কর্মকাণ্ড দিয়েই নবযুগের বামপন্থীদের বিচার করা উচিত। সেদিক থেকে অকাল মৃত্যুর শিকার হয়ে তিনি একরকম চিরদিনের জন্য বেঁচে গেলেন। তারপর হাটে মাঠে ঘাটে অনেক মুসলিম বাম নেতাকেই আমরা দেখলাম, আজো পর্যন্ত সেখান থেকে কোনো প্রথিতযশা বা প্রতিশ্রুতিশীল নেতাকে আমাদের খোলা বাজারে আর দেখা গেল না। এবছর নভেম্বরে বার্লিন দেয়াল ভেঙ্গে দুই বার্লিন এক হওয়ার দুদশক পূর্ণ হবে। আর এ বিশ বছরে আমাদের বামপন্থীদলগুলো ভেঙ্গে কত অংশে কত অভীধায় ভূষিত হল তার একটা তালিকা যদি করা যেত তাহলে মুসলিম বামদের এমন এক দশার সাথে আমাদের পরিচয় ঘটত, যা থেকে আমাদের দেশের পরবর্তী বামেরা সাবধান হতে পারত: মুসলিম বামগিরি আর নয়, বামের দিশা খুঁজতে একটু অপেক্ষা করি, একটু সময় নিয়ে আগাতে চাই।

মাসুদ করিম

লেখক। যদিও তার মৃত্যু হয়েছে। পাঠক। যেহেতু সে পুনর্জন্ম ঘটাতে পারে। সমালোচক। কারণ জীবন ধারন তাই করে তোলে আমাদের। আমার টুইট অনুসরণ করুন, আমার টুইট আমাকে বুঝতে অবদান রাখে। নিচের আইকনগুলো দিতে পারে আমার সাথে যোগাযোগের, আমাকে পাঠের ও আমাকে অনুসরণের একগুচ্ছ মাধ্যম।

30
আলোচনা শুরু করুন কিংবা চলমান আলোচনায় অংশ নিন ~

মন্তব্য করতে হলে মুক্তাঙ্গনে লগ্-ইন করুন
avatar
  সাবস্ক্রাইব করুন  
সাম্প্রতিকতম সবচেয়ে পুরোনো সর্বাধিক ভোটপ্রাপ্ত
অবগত করুন
nizam udin
অতিথি
nizam udin

ekti lekharr somorrthon’e arekti lekha,odhbhut taina masud bhai!!
shibram beche thakle bolten,

bhar-bhar buli jar
tar naam galiver…

মনজুরাউল
সদস্য

মুসলমান যেমন খালেদার নেক নজরে পড়ে মডারেট মোসল্মান হয়ে যায় তেমনি মুজফ্ফর আহমেদের “ধর্ম কর্ম সমাজতন্ত্র” বটিকা গিলে “মোসল্মান বাম” হয়েছে! আমিন, ছুম্মা আমিন!

রায়হান রশিদ
সদস্য

(দ্রষ্টব্য: যদি ভুল না বুঝে থাকি, রাজনৈতিক “বাম” বলতে লেখক সম্ভবত এর সংকীর্ণ সংজ্ঞাটি মাথায় রেখেই পোস্টটি লিখেছেন, অর্থাৎ সমাজতন্ত্রীদেরকেই কেবলমাত্র বোঝাতে চেয়েছেন)। নিচের তিনটা লাইন কি কেউ একটু ব্যাখ্যা করবেন? জানার ইচ্ছে থেকে জিজ্ঞস করছি, মাসুদ ভাইকে, সেইসাথে বাকী সবাইকে। “তারপর জিয়াউর রহমানের পকেট থেকে বের হল নবযুগের মুসলিম বাম।” –আসলেই কি তাই? ঠিক কিভাবে? “চিরনেতির নেতা উমর” –বদরুদ্দিন উমরকে “চিরনেতি” বলছেন কেন? –সমাজতান্ত্রিক তত্ত্ব নির্দেশনা, বাংলাদেশের অভ্যুদয় ইত্যাদি বিষয়ে উমরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মৌলিক কাজগুলো কি? –যাঁরা উমরকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করেন, তাদেরও নিশ্চয়ই কোন যুক্তি রয়েছে। সেই যুক্তিগুলো কি? –আস্ত পাঠ তালিকা ধরিয়ে না দিয়ে কেউ যদি সহজবোধ্যভাবে ব্যাপারগুলো… বাকিটুকু পড়ুন »

আবু নঈম মাহতাব মোর্শেদ
সদস্য

মাসুদ ভাই, মুসলিম বাম ও বদরুদ্দীন উমর এর ব্যাপারে আপনার বিস্তারিত বক্তব্য চাই ।

মনজুরাউল
সদস্য

রায়হান রশীদ উত্থাপিত প্রশ্নগুলো নিয়ে একটি সুস্থ আলোচনা হতে পারে, কিন্তু প্রশ্নের সংখ্যাধিক্যের কারণে উৎসাহে ভাটা পড়ে যাচ্ছে। তবুও দেখি কিছু বলা যায় কি-না আরো্একটু পরে…..

ত্রিশোনকু
সদস্য

আসলে ধান গাছে যেমন তক্তা হয়না,
আমড়া কাঠের ঢেঁকিও হয়না,
তেমনি মুসলিম বামও হয়না।

আমার অনেক অনেক দিন আগে শোনা এম এ জলিলের বক্তৃতার কথা মনে পড়ে গেল। যদিও এ আসরে তিনি কতটুকু গ্রহনযোগ্য আমি তা বুঝতে পারছি না। তবে যখনকার কথা বলছি তখনো তিনি হাফেজজী হুজুরের কোলে চড়ে বসেননি।
কথা উঠেছিল ধর্ম নিরপেক্ষতা নিয়ে। অন্য সব বক্তার সাথে্বিমতে গিয়ে তিনি প্রমান করে ছাড়লেন “ধর্ম নিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা”। অন্তত সেদিন ঐ আসরে আমি কাউকে দেখিনি তার যুক্তিগুলো খন্ডন করতে পারতে।

আসলে জনগন বিয়োগে রাজনীতি হ্য় না।
আমাদের জনগন আবার ধর্মের অস্বীকৃতিতে ভরসা পায়না।
তাই ধর্ম ও বামের অভূতপূর্ব সমন্বয় মুসলিম বাম।

আমড়া কাঠের ঢেঁকি।

ফিরোজ আহমেদ
অতিথি
ফিরোজ আহমেদ

ভাইজান আপনেরে চিনি না। কিন্তু কতাগুলা উদাহরণ সহকারে বললে বুঝতাম। বদরুদ্দীন উমর তো শুনছি দুইচাইরখান বই লেখছেন। ওনার ইসলাম ও সাম্প্রাদায়িকতা নিয়া তিন খান মোটামুটি পরিচিত বই আছে, কৃষক আন্দোলনের বিকাশ, তার সাম্প্রদায়িক মুসলিম লীগের রাজনীতিতে পতন বিষয়েও গ্রন্থ আর লেখালিখি আছে, সেইগুলা থেইকা যুদি কিচু রেফারেন্সটেন্স দিতেন! সেইসব থেইকা যদি দুই চাইরডা উদাহরণ সহকারে বুঝায়া কতেন, ক্যানে উনি মুসলিম বামদের গুরু, বোঝতাম। (আর মনি সিং না হয়া যুদি কোন মুসলিম কম্যুনিস্ট পার্টির নেতা হৈতেন…. আধা ঘন্টা হাসছি এই লাইন পইড়া। কিন্তুক আপনে ব্যাখ্যা ম্যাখ্যা দিয়া আরেকটা লেখা দিলে আমিও একটু লিখতাম চাই। তার আগ পর্যন্ত এই রকম উদাহরণহীন লেখ্যারে… বাকিটুকু পড়ুন »

ফিরোজ আহমেদ
অতিথি
ফিরোজ আহমেদ

স্যরি, বেকুবি বইলা একটু বাড়াবাড়ি হৈসে। আমি লজ্জিত।

কিন্তু আপনের লেখাটা একটু বেশি হুড়মুড় কইরা লেখা আর কি, ফলে যুক্তিরাশি যথাপথে নির্গত না হয়া চতুর্দিকে নিক্ষিপ্ত হযেছে, বোধ করি।

বিস্তারিত লেখার প্রত্যাশায় বসিয়া থাকলাম।

রায়হান রশিদ
সদস্য

@ ফিরোজ আহমেদ, সরস মন্তব্য। একটু হয়তো বেশীই সরস! এতো দিনে তব পড়িল পদধূলি! প্রথমত: #৭ মন্তব্যটি কাকে উদ্দেশ্য করে ঠিক স্পষ্ট হল না। দ্বিতীয়ত: “আপনেরে চিনিনা” মন্তব্য! বাংলা ব্লগে অতি ব্যবহারে জীর্ণ একটি প্রকাশভঙ্গী। ব্যক্তিগতভাবে “চেনাটা” মনে হয় না তেমন জরুরী। চেনা-চিনি দিয়ে চাকুরীর রেফারেন্স হয়, বিয়ের বাজারে শিঁকেলাভ হয়। এখানে কিছুই হয় না। তাছাড়া, হাজার চেষ্টা করেও কতটুকু চেনা সম্ভব কাউকে? আমি তো কাউকেই তেমন চিনি না রে ভাই, আমাকেও কেউ চেনে না; তাতে কি জীবন থেমে আছে? তৃতীয়ত: অনেক ধন্যবাদ বদরুদ্দিন উমর এর চিন্তাভাবনার কিছু সূত্র দেয়ার জন্য। এতক্ষণে আলোচনাটা উৎপাদনশীল হয়ে ওঠার একটা সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে।… বাকিটুকু পড়ুন »

ফিরোজ আহমেদ
অতিথি
ফিরোজ আহমেদ

@রায়হান রশীদ, এই মন্তব্যটা আপনাকে করা (আর ৭ নম্বর মন্তব্য লেখককে করা)। ব্লগ পাড়ায় লিখিয়া অভ্যাস নাই, তাই কারো পোস্ট প্রসঙ্গে কমেন্ট হৈলেও যে আলাদা করে উল্লেখ করতে হয়, তা জানতাম না ভাইজান। এত ধারা উপধারা মুখস্ত করতে পারলে তো উকিলই হৈতে পারতাম। চেনাচিনির বিষয়েও বলি, ব্লগের লোক আমি না। ব্লগের ভাষা মেনে কথা বলতেও আগ্রহ খুব একটা নাই। চেনা-অচেনা-কে কারে চেনে- আদৌ চেনা সম্ভব কিনা, ইত্যাদি বিষয়ে হাফ দার্শনিক (এ জগতে কেবা কার!) আলোজচনাও উদ্দেশ্য ছিল না অধমের। চেনা বলতে বাজারি অর্থেই বললাম, ইনি যদি এ বিষয়ে নিজের কিছু লেখার রেফারেন্সটেন্স দিতেন (নাই তো চিনতে পারি, সকলের লেখা তো… বাকিটুকু পড়ুন »

ফারুক ওয়াসিফ
সদস্য

“মাঝে মাঝে আমি ভাবি বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের কালে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির শীর্ষপদটি মণি সিংহের হাতে ন্যাস্ত না থেকে একজন মুসলিম বামের হতে থাকলে হয়তো কোনো অপকাণ্ড ঘটে যেতে পারত।”

এই প্রত্যয়কে কেন সাম্প্রদায়িক বলা যাবে না?

  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.