নির্যাতনের জন্য কখনো কোনো অজুহাত থাকতে পারে না

নির্যাতন ও অন্যান্য নিষ্ঠুর, অমানবিক বা অবমাননাকর আচরণ, যেমন দাসত্ব ও গণহত্যা, সবসময়ই ভুল৷ এই নীতি বহু বছর আগেই প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে, এবং আন্তর্জাতিক আইনে সন্নিবেশিত করা হয়েছে৷ মানবাধিকারের সার্বজনীন ঘোষণা-এর অনুচ্ছেদ ৫ অনুযায়ী সবার অধিকার রয়েছে নির্যাতন ও নিষ্ঠুর, অমানবিক বা অবমাননাকর আচরণ বা শাস্তির (‘অন্যান্য নিষ্ঠুর-আচরণ’) হাত থেকে মুক্ত থাকার৷

এ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের ২০০৮ সালের প্রতিবেদনে দেখা যায় যে জাতিসংঘ কর্তৃক ঘোষণাপত্রটি গৃহীত হওয়ার ৬০ বছর পরে, এখনো সারাবিশ্বজুড়ে মানুষ নির্যাতন বা নিষ্ঠুর-আচরণের শিকার হচ্ছে৷  প্রতিবেদনটি ৮১টি দেশের অবস্থাকে তুলে ধরে, কিন্তু আরো অনেকগুলো দেশেও নির্যাতন ও অন্যান্য নিষ্ঠুর-আচরণের ঘটনা ঘটে থাকে৷

সংগঠনটি কয়েক দশকের নির্যাতন লিপিবদ্ধ করেছে, যাতে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে এমন পরিস্থিতিসমূহ যেখানে সরকারগুলো সন্ত্রাসের হুমকিকে আবাহন করেছে যাতে এর ব্যবহারের পক্ষে সাফাই গাওয়া যায়৷ কিন্তু সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সন্ত্রাসবাদ দমনের নামে দেশগুলো কর্তৃক গৃহীত ব্যবস্থাগুলো সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করার প্রতি সম্মানকে দুর্বল করার হুমকি দেয় এবং এর গুরুত্ব অনুধাবনকে জোরদার করার প্রয়োজনীয়তা প্রদর্শন করে৷

এ সম্পর্কে আরো পড়ুন ‍এখানে

২ comments

Have your say

  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.