সৈকত শুদ্ধি অভিযান: আবর্জনায় প্রজন্মের ভবিষ্যত দর্শন

সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রতি বছর ১৯ সেপ্টেম্বর - সেচ্ছাসেবক এবং সেচ্ছাসেবক সংস্থাগুলোর স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে “অশেন কনসারভেন্সি” বিশ্বব্যাপী সামুদ্রিক এবং স্থল বেস্টিত জলপথ এবং জলাধারগুলোর চারপাশে আবর্জনার সামগ্রিক চিত্র তুলে ধরে। এই বছর “অশেন কনসারভেন্সী”-এর ২৩তম বার্ষিক “ইন্টারন্যাশনাল কোস্টাল ক্লিনাপ” ১০৪ টি দেশ ও স্থানে, প্রায় ৪,‌০০,০০০ সেচ্ছাসেবকের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে [...]

সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রতি বছর ১৯ সেপ্টেম্বর – সেচ্ছাসেবক এবং সেচ্ছাসেবক সংস্থাগুলোর স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে “অশেন কনসারভেন্সি” বিশ্বব্যাপী সামুদ্রিক এবং স্থল বেস্টিত জলপথ এবং জলাধারগুলোর চারপাশে আবর্জনার সামগ্রিক চিত্র তুলে ধরে। এই বছর “অশেন কনসারভেন্সী”-এর ২৩তম বার্ষিক “ইন্টারন্যাশনাল কোস্টাল ক্লিনাপ” ১০৪ টি দেশ ও স্থানে, প্রায় ৪,‌০০,০০০ সেচ্ছাসেবকের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

প্রতি বছর সমুদ্রের আবর্জনার পরিস্যংখান প্রস্তুত করার জন্য দেশে-দেশে সম্মিলিতভাবে প্রায় ৬.৮ মিলিয়ন পাউন্ড ওজনের আবর্জনা উত্তোলন করে সে সবের তথ্যাদি সংকলন করা হয়। এই পরিসংখ্যান আবর্জনার গুপ্ত রহস্য প্রকাশ করে। সিগারেটের পরিত্যক্ত অংশ এবং ফাস্টফুডের আবরনী কাগজ থেকে শুরু করে ব্যবহৃত সিরিঞ্জ, পুরোনো মাছ ধরার জাল – সাধারণত এসবই আবর্জনার সিংহভাগ দখল করে থাকে। গুরুত্বপূর্ণ এই পরিসংখ্যান সমুদ্রের ধারণ ক্ষমতা ও এর জটিল জীবন-সহায়ক ব্যবস্থার ওপর বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের যে প্রভাব তার সাথে সামুদ্রিক আবর্জনার কারণে উদ্ভুত সমস্যা সমুহের যোগসূত্রও নির্দেশ করে। এসব বিবেচনা করেই সামুদ্রিক আবর্জনা নির্মূলের লক্ষ্যে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শের ভিত্তিতে প্রণীত কার্যপদ্ধতিতে বিশেষ জোর দেয়া হয়েছে আচরণগত পরিবর্তন এবং উন্নততর নীতিমালা প্রণয়নের দিকে। সামুদ্রিক আবর্জনার সমস্যা মানুষের সৃষ্টি, তাই এর দায়-দায়িত্বও মানুষকেই নিতে হবে। “ইন্টারন্যাশনাল কোস্টাল ক্লিনাপ”-এর সুদীর্ঘ ২৩ বছরের ইতিহাসে প্রাপ্ত তথ্যাদির সংকলন এই কর্মোদ্যোগকেই আরও উদ্দীপনা এবং উৎসাহ জোগাবে বলে আশা করা যায়। নিসর্গপ্রেমী জনগণ, শীর্ষস্থানীয় সংস্থা সমুহ এবং সরকারী-রাজনৈতিক নেত্রীবর্গ একত্রে কাজ করলে সামুদ্রিক আবর্জনার উৎস চিরতরে বন্ধ করা সম্ভব। আমাদের, পরবর্তী প্রজন্মের ও বিশ্বের ভবিষ্যত অনেকটাই এর উপর নির্ভর করছে।

“কেওক্রাডং বাংলাদেশ” বিভিন্ন স্থানীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সরকারী দফতর, পৃষ্ঠপোষক এবং আরও অনেক শুভানুধ্যায়ীদের আন্তরিক সহযোগিতায় ২০০৬ সাল হতে বাংলাদেশে এই মহান আন্তর্জাতিক কার্যক্রমটি সাফল্যের সাথে আয়োজন করে এতে শামিল হয়ে আসছে। এই পরিক্রমায় আমাদের সমুদ্র সৈকত থেকে যে পরিমান আবর্জনা সংগ্রহ করা হবে তা হয়ে ওঠবে আমাদের বর্তমান সামুদ্রিক পরিবেশের এক বাস্তব প্রতিচ্ছবি।

জনসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে অধিক সংখ্যক পর্যটক হয়তো আমাদের পর্যটন শিল্পের বিকাশ ঘটাচ্ছে কিন্তু একই সাথে স্বাস্থ্য এবং সামুদ্রিক পরিবেশের ধারণ ক্ষমতা প্রতিনিয়ত হুমকির সম্মূখীন করছে। দূষণ সম্পর্কিত জ্ঞানের স্বল্পতা, আবর্জনা সংরক্ষণকরণ পদ্ধতির অপ্রতুলতা, সমুদ্রের প্রতি তাচ্ছিল্যপূর্ণ মনভাব দিনকেদিন এই অবস্থার আরও অবনতি ঘটাচ্ছে।

সমুদ্র সৈকতে একটি দিন, একটি পরিবর্তিত বিশ্বের সূচনা করতে পারে – এই বিশ্বাসকে অন্তরে ধারণ করেই আমাদের প্রচেষ্টা।

আন্তর্জাতিক সৈকত শুদ্ধি দিবস উপলক্ষে কেওক্রাডং বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সবার প্রতি আহ্বান . . .

মুনতাসির

আমি পাহাড়ে চড়ি, সাগরে ডুবি, পৃথিবী আমার প্রেম।

আলোচনা শুরু করুন কিংবা চলমান আলোচনায় অংশ নিন ~

মন্তব্য করতে হলে মুক্তাঙ্গনে লগ্-ইন করুন
avatar
  সাবস্ক্রাইব করুন  
অবগত করুন
  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.