কাবুলিওয়ালা এবং উবে যাওয়া বুদ্বুদ

মর্টগেজ মানে হোলো কাবুলিওয়ালার কাছ থেকে কড়ি ধার করে বাড়ি কেনা। ব্যাপারটা অনেকটা এরকম: কাবুলিওয়ালা (এখন তাদের গালভরা নাম ‘মর্টগেজ লেন্ডার’) টাকা ধার দেবে। ঋণীকে ২৫ বছর মেয়াদে সেটা শোধ করতে হবে। আদতে দাম পড়ে যাবে সোয়াগুন। কিন্তু তাতে কি! সবার কাছেতো আর বাপের দেয়া থোক টাকা থাকে না, তাই তরুন চাকুরেকে হাত পাততে হয় এদের কাছে। কাগজপত্তর ফয়সালা হলে উঠে পড়া বাড়িতে।

বাড়ি নামে আপনার, যতোদিন মাসেকাবারে কিস্তি দেবেন কাবুলিওয়ালাকে। কপাল ভালো হলে, বছর পঁচিশেক পর আপনি মুক্ত। কপাল আরো ভালো থাকলে ক’বছর পড়েই বাড়ির দাম বেড়ে যায়। এ বাড়ি বেচে দিয়ে কেনা আর বেচার ব্যাবধান, মানে মুনাফা, থোক কিছু টাকা হাতে আসে, সেটা জমা দিয়ে আরেকটা মর্গেজ । এভাবে চলতে থাকে। প্রতিবারই কিন্তু ঘড়ি আবার ২৫ বছরের জন্য গোনা শুরু করবে!

তবে আজকালকার কাবুলিরা আবার বেজায় চালাক! নানান রকম জটিল হিসেবের চক্করে ফেলে ক’বছর গেলেই দেখেবেন মাসের আয়ের বেশিরভাগটাই নিয়ে গেছে মুখপোড়া কাবুলিটা! কপালের ফেরে একবার যদি আয় ব্যায়ের হিসাবে গড়বড় করতে পারেন তবেই সেরেছে! মাফ নেই, ক’মাস পড়েই আসবে আদালতের সমন, ঘটনা খারাপ হয়ে গেলে বাড়ি ফেরৎ নিয়ে যাবে।

এই আতংক জাগানিয়া ঘটনার ইংরেজি নাম রি-পজেশন।

বাড়ি নিলামে চড়ায় তখন কাবুলিওয়ালা, সে চায় যতো তাড়াতাড়ি এই ফেল্টুস্ আপদ থেকে মু্ক্তি ততোই বাঁচোয়া! এজন্য লোকসান দিয়ে হলেও তারা বাড়িটার হাত থেকে মুক্ত হয়! এখানে ছোট্ট একটা ব্যাপার লক্ষ্য করার মতো, বাড়ির জন্য প্রাথমিক ভাবে যে দাম শোধ করা হয়েছিলো তার পুরোটা কাবুলিওয়ালা কখনোই ফেরৎ পায় না। মানে হোল কিছু টাকা কাবুলিওয়ালার ঝোলা থেকে বেমালুম গায়েব হয়ে গেলে। আর আপনি যা ফিরিয়ে দিয়েছিলেন মাসে মাসে, তার প্রায় সবটাই এই মামলা সেই মামলায় উবে যায়!

আপনার হাতে হারিকেন।

কাবুলিওয়ালার দিক থেকে দেখলে, বছরওয়ারী এরকম কয়েকটা ঘটনা অবশ্য তার গন্ডার চামড়ায় লাগে না।

সবই ঠিক ছিলো! আম্রিকায় বাড়ি বাড়ি বুদ্বুদটার আগে পর্যন্ত।

বুদ্বুদ হলো… ঐ যে কোলা ব্যাঙটার পেট ফোলানোর মতো, গরুর সাথে পাল্লা দিতে গিয়েছিলো। রাখতে পারেনি। ফুউউউসসসস্ করে ফেঁসে গেল সেরকমই বাড়ির বুদ্বুদটা।

লক্ষনগুলি এরকম… বাড়ির দাম ক্রমাগত বাড়তে থাকে, সেটা আর সব কিছুরই বাড়ে। বুদ্বুদটা তৈরি হয় তখনি, যখন দাম বাড়ার হার তেজি ঘোড়ার মতো লাফ দিয়ে দিয়ে এগোয়। পুরো দেশে একই সাথে বাড়ির দাম পাল্লা দিয়ে দিয়ে বাড়তে বাড়তে এতো উচুতে উঠে যায় যে বেচারা ম্যাঙ্গোপিপল একসময় হাঁপিয়ে উঠে হাল ছেড়ে দেয়। কিস্তি দিয়ে আর কুলোতে না পেরে বাড়ি হারানোর সম্ভাবনা আছে দেখতে পেলে বাড়ির মালিক হাত ধুয়ে ফেলে। তখন নিয়ম মতো আসল মালিক কাবুলিওয়ালা এসে বাড়িটা নিয়ে নেয় দখলে। কিন্তু কাবুলিতো বাড়ি চায় না, সে চায় টাকা ফেরৎ, ওদিকে তার হাতে এখন রিপজেশন নেয়া মেলা বাড়ি, তারাতারি হাত বদল করে ফেলতে চায় সে। কিন্তু কে কিনবে! ফলে তীব্র তারল্য সংকটে পড়ে কাবুলি, কাবুলির চাচা সহ সংস্লিষ্ট সকলেই!

কাবুলিওয়ালার গন্ডার চামড়ায়ও তখন হালকা আঁচ লাগতে শুরু করে…

এতোদিন কাবুলিওয়ালা দলিল জমা দিয়ে কয়েকটা বড়ো গোলা থেকে টাকা আনতো। গোলার রইস, সেই দলিল তার বিনিয়োগকারীরকে দিতো গ্যারেন্টি হিসেবে। এভাবেই চলছিলো।

আমেরিকায় এমন দুই টাকার গোলার নাম ‘ফেনি ম্যে’ আর ‘ফ্রেডি ম্যাক’। গত ত্রিশ বছর যাবৎ এই দুই অতিশয় গুরুত্বপূর্ন টাইমবোম টিক টিক করে আসছিলো। বেচারাদের এখন বোধহয় পটল তুলবার সময় হয়েছে। কারন কড়ির গোলা নিজেরাই শুন্য হয়ে গেছে। এই দুই গোলা আবার সরকারী/বেসরকারী হাঁসজারু মালিকানায়। অর্থ্যাৎ, ডুবে যাবার দশা হলে গাঁটের পয়সা দিয়ে এদের বাঁচাতে হবে দেশের জনগনকেই ; সেই একই জনগন, যাদের বাড়ি ফেরৎ নিয়ে গেছে কাবুলিওয়ালা। মরার ওপর খাঁড়ার ঘা যাকে বলে! আর এটাই হলো বুদবুদের ফেঁসে যাওয়ার আরেকটা দিক!

সোজা বাংলায়, টাকার গোলা ইদানীং শুন্য হয়ে পড়েছে। ছোট কাবুলিরা ধার দেবার জন্য আর টাকা পাচ্ছে না। বাজারে প্রচুর চাহিদা থাকা সত্বেও দেবার মতো কারো হাতেই আর টাকা নেই। মুদ্রা স্রোতস্বীণি শুকিয়ে ঠাঠা।
বাড়ির দাম পড়ে গেছে হাটুরও নিচে। সবাই তাই যার যার বাড়ি ভাড়ায় দিয়ে দিচ্ছে! আবার বাড়ি বিক্রি করতে চাইলেও কেউ পারছে না। কিনবে কে! যে কিনবে তারও যে মর্গেজ চাই! ওদিকে মর্গেজের কলস শুন্য! এ এক বিষম গিট্টু লেগে গেছে টাকার বাজারে।

২০০১ সালে ‘ডট-কম’ ফুস্ হয়ে যাবার কথা মনে আছে নিশ্চয়? ২০০৩ সালে এসে সেই ধাক্বা সামলাবার জন্য যেসব ব্যাবস্থা নিয়েছিলো কড়ির আড়তীরা, তার মাঝে একটা ছিলো ‘দেদারসে নতুন বাড়ি বানাও’ দাওয়াই। ২০০৫ সালে এক হিসেব মতে শুধু যুক্তরাষ্ট্রেই নুতন বাড়ি বিক্কিরি হয়েছে প্রায় তের লক্ষ! তখনকার পরিস্থিতি ধামাচাপা সামাল দেয়া গেলেও এখন এই দাওয়াই হিতে বিপরীত গ্যঙ্গ্রিন আকারে এখন পুরো দুনিয়া ধরে টান দিয়েছে।

সাথে যোগ দিয়েছে তেলের দাম বৃদ্ধি, খাবারের দুষ্প্রাপ্যতা…দাম বৃদ্ধি, ফলে সবধরনের মুল্যস্ফীতি!

আগামী কয়েক দশকে দুর্ভিক্ষ আর গন্ডগোলে পৃথিবীর জনসংখ্য পাঁচ বিলিয়নে নেমে এলে আমি আশ্চর্য হবো না।

আর সেটাই কি বিল্ডারবার্গ গ্রুপের অনেকগুলো লক্ষ্যের একটা নয়?

6
আলোচনা শুরু করুন কিংবা চলমান আলোচনায় অংশ নিন ~

মন্তব্য করতে হলে মুক্তাঙ্গনে লগ্-ইন করুন
avatar
  সাবস্ক্রাইব করুন  
সাম্প্রতিকতম সবচেয়ে পুরোনো সর্বাধিক ভোটপ্রাপ্ত
অবগত করুন
রায়হান রশিদ
সদস্য

গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই আটলান্টিকের দুই পাশে হাউজিং মার্কেট, মর্টগেজ, রিপজেশন ইত্যাদি নিয়ে খবর আর আলোচনার ছড়াছড়ি। আপনার লেখা পড়ে কিছু বিষয় পরিস্কার হল। ধন্যবাদ। কিন্তু এর সাথে ভবিষ্যত পৃথিবীর অস্থিরতাজনিত জনসংখ্যা হ্রাসের প্রেডিকশান এবং তার সাথে বিল্ডার্সবার্গ গ্রুপের যোগাযোগটা স্পষ্ট হলনা। একটু ব্যাখ্যা করা যায় কি?

রাজামশাই
অতিথি
রাজামশাই

ওরে আরিফ আছিস কেমন ?

পড়লাম

সৈয়দ তাজরুল হোসেন
সদস্য

ক্রমশ ধ্বশঃমান প্রপার্টির বাজার সম্পর্কে ইদানিংকার আলোচিত বিষয়টি নিয়ে লেখার জন্য আরিফকে ধন্যবাদ । তবে কিছু বিশ্লেষন অতি সরল মনে হয়েছে, যেমনঃ টাকার গোলা ইদানীং শুন্য হয়ে পড়েছে। ছোট কাবুলিরা ধার দেবার জন্য আর টাকা পাচ্ছে না। বাজারে প্রচুর চাহিদা থাকা সত্বেও দেবার মতো কারো হাতেই আর টাকা নেই। মুদ্রা স্রোতস্বীণি শুকিয়ে ঠাঠা। আসলে বিষয়টা মনে হয় আরেকটু জটিল, যদি শুধু মাত্র গোলা শুন্য হয়ে যাওয়াটা-ই সমস্যা হত, তা হলে সেগুলো ভরে দেয়ার জন্য সরকারি টাকশালের দরজা খুলে দেয়া হত বহু আগেই । মর্টগেজ গ্রহনকারীরা তাদের ঋন পরিশোধের যে সামর্থ তার চেয়ে অনেক বেশি ঋন করে যেহেতু এখন আর তা… বাকিটুকু পড়ুন »

  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.