সুপারিশকৃত লিন্ক: মার্চ ২০২৩

মুক্তাঙ্গন-এ উপরোক্ত শিরোনামের নিয়মিত এই সিরিজটিতে থাকছে দেশী বিদেশী পত্রপত্রিকা, ব্লগ ও গবেষণাপত্র থেকে পাঠক সুপারিশকৃত ওয়েবলিন্কের তালিকা। কী ধরণের বিষয়বস্তুর উপর লিন্ক সুপারিশ করা যাবে তার কোনো নির্দিষ্ট নিয়ম, মানদণ্ড বা সময়কাল নেই। পুরো ইন্টারনেট থেকে যা কিছু গুরত্বপূর্ণ, জরুরি, মজার বা আগ্রহোদ্দীপক মনে করবেন পাঠকরা, তা-ই তাঁরা মন্তব্য আকারে উল্লেখ করতে পারেন এখানে।
ধন্যবাদ।

আজকের লিন্ক

এখানে থাকছে দেশী বিদেশী পত্রপত্রিকা, ব্লগ ও গবেষণাপত্র থেকে পাঠক সুপারিশকৃত ওয়েবলিন্কের তালিকা। পুরো ইন্টারনেট থেকে যা কিছু গুরত্বপূর্ণ, জরুরি, মজার বা আগ্রহোদ্দীপক মনে করবেন পাঠকরা, তা-ই সুপারিশ করুন এখানে। ধন্যবাদ।

৬ comments

  1. মাসুদ করিম - ১ মার্চ ২০২৩ (৫:৪৫ অপরাহ্ণ)

    পাটকে কৃষিপণ্য ঘোষণা করে গেজেট
    https://www.banglatribune.com/others/787760/%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%9F%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%95%E0%A7%83%E0%A6%B7%E0%A6%BF%E0%A6%AA%E0%A6%A3%E0%A7%8D%E0%A6%AF-%E0%A6%98%E0%A7%8B%E0%A6%B7%E0%A6%A3%E0%A6%BE-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A7%87-%E0%A6%97%E0%A7%87%E0%A6%9C%E0%A7%87%E0%A6%9F

    পাটকে কৃষিপণ্য ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে কৃষি মন্ত্রণালয়। পরে প্রজ্ঞাপনের গেজেট জারি করে সরকার। মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পাটকে কৃষিপণ্য হিসেবে ঘোষণা করে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

    বুধবার (১ মার্চ) কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপনের গেজেট জারি করা হয়।

    গেজেটে বলা হয়, গত ৯ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকের সিদ্ধান্ত মোতাবেক সোনালি আঁশ পাটকে কৃষিপণ্য ঘোষণা করা হলো। জনস্বার্থে জারি করা এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে।

    উল্লেখ্য, গত ৯ জানুয়ারি মন্ত্রিসভা বৈঠকে পাটকে কৃষিজাত পণ্য হিসেবে গণ্য করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছিলেন।

    ওইদিন মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বর্তমানে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে পাটের আঁশের ব্যবহার অনেক বেড়েছে। অনেক সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। এ সম্ভাবনা কাজে লাগানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। এখন থেকে পাট হবে কৃষিজাত পণ্য। এত দিন এটা কৃষিপণ্য ছিল না।

    https://twitter.com/urumurum/status/1630987359889293314

  2. মাসুদ করিম - ৮ মার্চ ২০২৩ (৩:১২ পূর্বাহ্ণ)

    দশককালের আলোচনা শেষে হল ঐতিহাসিক সমুদ্র চুক্তি
    https://bangla.bdnews24.com/world/6o2vmm47ui
    এই হাই সী’স ট্রিটিতে সমুদ্রের পরিবেশ রক্ষা ও পুনরুদ্ধারে সাগর-মহাসাগরের ৩০ শতাংশকে ২০৩০ সালের মধ্যে সংরক্ষিত এলাকায় পরিণত করার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে।

    দশ বছরের আলোচনা, দরকষাকষির পর সাগর-মহাসাগর রক্ষায় ঐতিহাসিক এক চুক্তিতে পৌঁছাল বিশ্বের দেশগুলো।

    এই হাই সী’স ট্রিটিতে সমুদ্রের পরিবেশ রক্ষা ও পুনরুদ্ধারে সাগর-মহাসাগরের ৩০ শতাংশকে ২০৩০ সালের মধ্যে সংরক্ষিত এলাকায় পরিণত করার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে।

    টানা ৩৮ ঘণ্টা আলোচনার পর শনিবার সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের সদরদপ্তরে চুক্তিটির ব্যাপারে সবার সম্মতি মেলে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

    তহবিল ও মাছ ধরার অধিকার নিয়ে মতানৈক্যের কারণে চুক্তির আলোচনা এতদিন ধরে ঝুলে ছিল।

    সমুদ্র রক্ষায় সর্বশেষ যে আন্তর্জাতিক চুক্তি হয়েছিল, সেই ইউএন কনভেনশন অন দ্য ল অব দ্য সী স্বাক্ষরিত হয়েছিল ৪০ বছর আগে, ১৯৮২ সালে।

    ওই চুক্তি হাই সী ধারণাকে প্রতিষ্ঠিত করলেও, তার মাত্র এক দশমিক ২ শতাংশ সুরক্ষিত অবস্থায় রয়েছে। হাই সী হচ্ছে আন্তর্জাতিক জলসীমা, যেখানে সব দেশের অধিকার, জাহাজ চালানো ও গবেষণার অধিকার রয়েছে।

    জলবায়ু পরিবর্তন, অত্যধিক মাছ ধরা ও জাহাজ চলাচলের কারণে সংরক্ষিত এলাকার বাইরে থাকা সামুদ্রিক উদ্ভিদ ও প্রাণীকূল ভয়াবহ ঝুঁকির মধ্যে আছে।

    এর মধ্যে প্রায় ১০ শতাংশ বিলুপ্ত হয়ে যাওয়ার মুখে রয়েছে বলে বৈশ্বিক সামুদ্রিক প্রজাতি নিয়ে হওয়া সর্বশেষ পর্যালোচনায় দেখা যাচ্ছে, জানিয়েছে ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব নেচার (আইইউসিএন)।

    নতুন চুক্তিতে যেসব সমুদ্রের যেসব এলাকা সংরক্ষিত হিসেবে বিবেচিত হবে সেখানে মাছ ধরা, নৌযান চলাচলের রুট এবং খনন কাজের সীমা, ভূপৃষ্ঠ থেকে ২০০ মিটার বা তার নিচের সমুদ্র তলদেশ থেকে কখন খনিজ পদার্থ নেওয়া যাবে, তা ঠিক করে দেওয়া হবে।

    সমুদ্রে খনন কাজ সেখানকার প্রাণীদের প্রজননে ব্যাঘাত, শব্দ দূষণ সৃষ্টি এবং সামুদ্রিক জীবনকে বিষিয়ে তুলতে পারে জানিয়ে পরিবেশবাদী গোষ্ঠীগুলো দীর্ঘদিন ধরেই সমুদ্রে খনন প্রক্রিয়া নিয়ে উদ্বেগ জানিয়ে আসছিল।

    চুক্তিটি আনুষ্ঠানিকভাবে অনুমোদনে সদস্য দেশগুলোকে ফের বসতে হবে; কার্যকর হওয়ার আগে চুক্তিটি নিয়ে এখনও অনেক কাজ বাকি বলেও জানিয়েছে বিবিসি।

    “চুক্তিটি কার্যকর হতে এখনও বেশ খানিকটা সময় লাগবে। বলবৎ হওয়ার আগে দেশগুলোকে চুক্তিটিতে অনুসমর্থন দিতে হবে। এরপর বিজ্ঞান ও কারিগরি কমিটির মতো অনেকগুলো প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো ঠিক করতে হবে,” বলেছেন পিউস ট্রাস্ট ওশান গভর্নেন্স টিমের পরিচালক লিজ কারান।

  3. মাসুদ করিম - ৮ মার্চ ২০২৩ (৭:০৮ পূর্বাহ্ণ)

    ‘71 killing ground turned into martyrs memorial park in Sylhet
    https://www.tbsnews.net/bangladesh/71-killing-ground-turned-martyrs-memorial-park-sylhet-595818

    The Salutikor killing ground in Sylhet, where over 200 freedom fighters were killed in 1971 and which remained inaccessible to people until recently, has been turned into a memorial park for people to come and show respect to the martyrs.

    After a wait of 52 years, now relatives and others can come to Shadhinotar Shaheed Smriti Udyan near Sylhet Cadet College and commemorate the martyred freedom fighters.

    All this has been possible thanks to the initiative of two freedom fighters – Col (retd) Mohammad Abdus Salam, Bir Protik and Professor Ziauddin Ahmed – who raised funds to develop the abandoned place and erect memorials for the martyrs.

    “My father was killed before I was born. We did not even know where his grave was. Now, I am happy that at least we know where my father’s body was buried. When I touched the plaque, I felt the touch of my father, for the first time in my life,” Rina told The Business Standard in an emotion-choked voice.

    These mass graves were lying abandoned for a long time as the location is in the reserved area of the cantonment, not accessible to the general public. There was no list of who were killed here.

    Freedom fighters Abdus Salam and Ziauddin Ahmed found out the names and addresses of the martyrs lying here. So far 66 people have been identified.

    The memorial park was inaugurated on Saturday.

    Shahrin Rahman Lubna is the daughter of martyr Col Dr Abu Fazal Ziaur Rahman who was the principal of Sylhet Medical College in 1971. Her family only knew that he was killed by the Pakistani army but nobody knew where he was buried.

    “We have been looking for my father’s grave. Today, I found it. I thank from the bottom of my heart those who took this initiative. They have returned my father to us,” said Lubna.

    Major Dr (retd) Syed Jamil Abdal, whose father was also killed by the Pakistan army, told TBS, “My father used to work in a tea garden in Sylhet in 1971. We only knew that the army took him to the camp here. We are happy that today we found his memorial and it seems my father was given recognition for his sacrifice.”

    Ziauddin and Abdus Salam said that a library, museum, coffee shop and separate seating area will be constructed in this memorial park.

    Pakistanis killed freedom fighter Ziauddin Ahmad’s father Dr Shamsuddin Ahmad who was working at Sylhet Medical College. Young Ziauddin was in the war.

    “There is no complete list of martyrs in the liberation war. No one knows how many were killed and where they were buried. We are trying to find out. In 2017, we took the initiative to make the killing ground a memorial park,” said Ziauddin.

    https://twitter.com/icsforum/status/1633153501764407297

  4. মাসুদ করিম - ১১ মার্চ ২০২৩ (৫:১২ অপরাহ্ণ)

    Renewable energy investors squeezed by higher interest rates, costs
    https://www.tbsnews.net/analysis/renewable-energy-investors-squeezed-higher-interest-rates-costs-597918

    Corporations and investors have been pouring money into renewable energy projects, seeing an opportunity to grasp the Holy Grail of socially conscious investing: do good while doing well.

    But sharply higher interest rates have further stressed a model strained by soaring prices for steel and silicon, vital for wind turbines and solar panels.

    Higher costs have buyers and sellers of renewable power projects recalculating potential returns, hampering fundraising and mergers and acquisitions (M&A).

    For years, the cleantech revolution has attracted big bucks, echoing investment booms that benefited from the zeitgeist around organic food, shale oil and gas, and sustainable fishing ventures.

    “I think of the most recent years in the power space and renewables specifically a bit like the shale boom in 2008-2010,” said Bernadette Johnson, head of power and renewables at analytics firm Enverus.

    A decade of low interest rates meant borrowers could raise cheap debt to build projects and juice returns. But an era of plentiful materials and financing has given way to constraints.

    With the US Federal Reserve projected to raise headline rates to around 5.5% this year and European hawks starting to posit peak rates above 4%, returns are squeezed.

    “Some people are starting to lose money. Others are definitely making money but it’s evolving,” Johnson said.

    RECUT THE ECONOMICS

    Even with President Joe Biden’s Inflation Reduction Act (IRA) and potential state support in Europe, private equity investment in alternative energy including battery and energy conservation technology is heading for the slowest quarter since 2020, according to Refinitiv data.

    Refinitiv also projects the value of M&A this quarter will total $5.6 billion, from $17.7 billion last and almost in line with the depths of COVID total between April and June 2020.

    RECUT THE ECONOMICS

    Even with President Joe Biden’s Inflation Reduction Act (IRA) and potential state support in Europe, private equity investment in alternative energy including battery and energy conservation technology is heading for the slowest quarter since 2020, according to Refinitiv data.

    Refinitiv also projects the value of M&A this quarter will total $5.6 billion, from $17.7 billion last and almost in line with the depths of COVID total between April and June 2020.

  5. মাসুদ করিম - ২২ মার্চ ২০২৩ (৪:৫৪ পূর্বাহ্ণ)

    ভাস্কর চলে গেলেন, ‘স্বাধীনতা সংগ্রাম’ রক্ষণাবেক্ষণে কি অর্থ মিলবে?
    https://bangla.bdnews24.com/bangladesh/hhn2a98mqa
    শামীম সিকদারের তৈরি ১১৬টি ভাস্কর্যের বেশিরভাগে নামফলক বা পরিচিতি না থাকায় সেগুলো বুঝতে এখনই অসুবিধা হচ্ছে দর্শনার্থীদের।

    ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দক্ষিণ ফুলার রোডের শেষ প্রান্তে গেলেই চোখে পড়বে ত্রিভুজ আকৃতির একটি সড়ক দ্বীপ, যেখানে শ্বেতবর্ণের সারি সারি আবক্ষ ভাস্কর্য ঘিরে দাঁড়িয়ে আছে ‘স্বাধীনতা সংগ্রাম’ ভাস্কর্য।

    পরিসরের দিক থেকে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ভাস্কর্য হিসেবে পরিচিত এই ‘স্বাধীনতা সংগ্রাম’ বাঙালির স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসকে ধারণ করছে। তার চারপাশে দেশ-বিদেশের শতাধিক ব্যক্তির ভাস্কর্য প্রতিনিধিত্ব করছে বিশ্বের মুক্তিকামীদের।

    অযত্ন অবহেলায় দীর্ঘদিন ধরে বেহাল পড়েছিল স্বাধীনতা সংগ্রাম ভাস্কর্য। সম্প্রতি ভাস্কর শামীম সিকদার দেশে এসে সেগুলোর মেরামত ও রং করায় নতুনত্ব ফিরে পেয়েছে ভাস্কর্যগুলো, যিনি গত হয়েছেন মঙ্গলবারই।

    সবুজ-শ্যামল দৃষ্টিনন্দন চত্বরটির পাশ দিয়ে হেঁটে গেলে যে কাউকে তা কৌতূহলী করে তোলে, অনেককে ছবি তুলতে দেখা যায়। তবে ভাস্কর্যটি সম্পর্কে জানেন না অনেকেই।

    স্ত্রীকে নিয়ে সাভার থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘুরতে এসেছেন শাহরিয়ার আলম। স্বাধীনতা সংগ্রাম ভাস্কর্য চত্বরের সামনে দাঁড়িয়ে তাদের ছবি তুলতে দেখা গেল।

    আলাপচারিতায় তারা জানালেন, বঙ্গবন্ধু, শেরে বাংলাসহ বিখ্যাত ব্যক্তিদের সঙ্গে সাধারণ মানুষদের ভাস্কর্য তাদের নজর কেড়েছে।

    শাহরিয়ার বললেন, “এত বিশাল ভাস্কর্যের মহত্ব বা বিশেষত্ব কী- আমাদের জানা নেই। তবে এখানে একটা বিষয় আমাদের নজড় কেড়েছে। সেটা হলো- এখানে প্রাকৃতজন থেকে শুরু করে বিশ্ব বিখ্যাতদের ভাস্কর্য স্থান পেয়েছে। এ যেন অনেক গুণী মানুষদের মহামিলন মেলা।”

    দর্শনার্থীদের জন্য প্রতিদিন বিকাল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এবং ছুটির দিনগুলোতে সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এ ভাস্কর্য চত্বরটি খোলা থাকে। দর্শনার্থীরা বিনামূল্যে ভাস্কর্য চত্বরে প্রবেশ করতে পারেন, ফলে প্রতিদিনিই দর্শনার্থীর সংখ্যা বাড়ছে।

    বান্ধবীদের নিয়ে স্বাধীনতা সংগ্রাম ভাস্কর্য চত্বরে ঘুরে দেখছিলেন ঢাকার একটি কলেজের শিক্ষার্থী ফারহানা তাবাচ্ছুম।

    তিনি বললেন, “আমরা মূলত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘুরতে এসেছি। এই দিক দিয়ে যাওয়ার পথে ভাস্কর্যগুলোতে চোখ আটকে গেল। এক সাথে এতগুলো ভাস্কর্য কোথাও দেখি নাই। তাই অনেকগুলো ছবি তুলে নিলাম।

    “এখানে দেশ-বিদেশের অনেক মহান ব্যক্তিদের ভাস্কর্য দেখতে পেয়েছি। তবে অধিকাংশ ভাস্কর্যে নামফলক বা পরিচিতি না থাকায় সেগুলো বুঝতে অসুবিধা হচ্ছিল।”

    হবিগঞ্জ থেকে ঢাকায় ঘুরতে এসেছে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী শাকিল হোসেন। স্বাধীনতা সংগ্রাম ভাস্কর্য ঘুরে দেখার পর অনুভূতি জানাতে গিয়ে বলছিল, একসাথে অনেকগুলো ভাস্কর্য দেখলাম। অনেক গুণীজন সম্পর্কে জানতে পারলাম।

    “স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে শহীদ নূর হোসেনের গুলিবিদ্ধ ভাস্কর্যটা আমাকে খুব নাড়া দিয়েছে। এভাবে একজন নূর হোসেনকে জীবন্ত রাখা যায়, তা না দেখলে বুঝতে পারতাম না।”

    স্বাধীনতা সংগ্রাম ভাস্কর্যের যাত্রা

    ভাস্কর শামীম সিকদার ১৯৮৮ সালে ফুলার রোডে অবস্থিত সেকেলে বাংলো স্টাইলের বাড়ির (বর্তমানে প্রোভিসির ভবন) সামনের পরিত্যক্ত জায়গায় ‘অমর একুশে’ নামে একটি বিশাল ভাস্কর্য নির্মাণ শুরু করেন। ১৯৯০ সালের ফেব্রুয়ারিতে প্রয়াত অধ্যাপক আহমদ শরীফ এটি উদ্বোধন করেন। ১৯৯৮ সালে ওই স্থানে উদয়ন স্কুলের নতুন ভবন নির্মাণ শুরু হলে ভাস্কর্যটি স্থানান্তরের প্রয়োজন হয়। ভাস্কর্যটি সড়কদ্বীপে এনে রাখা হয়।

    পরে ভাস্কর শামীম সিকদার ওই ভাস্কর্যটির অবয়ব পরিবর্তন ও পরিবর্ধন করে ‘স্বাধীনতা সংগ্রাম’ নাম দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের আলোকে নতুনভাবে নির্মাণ করেন। একইসঙ্গে বিভিন্ন ভাস্কর্য দিয়ে সড়ক দ্বীপটিকেও তিনি নিজের মনের মতো গড়ে তোলেন। ১৯৯৯ সালের ৭ মার্চ তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এটি উদ্বোধন করেন।

    ভাস্কর্য চত্বরটি মূলত স্বাধীনতা সংগ্রাম মনুমেন্ট ঘিরে, যেখানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ভাষা অন্দোলন ও স্বাধীনতা সংগ্রামের শহীদের মুখাবয়ব স্থান পেয়েছে। মনুমেন্টটির নিচে ভাষা শহীদের ভাস্কর্য এবং সবার উপরে বঙ্গবন্ধুর দৃঢ় নেতৃত্বের চিত্র ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। আর তার মাথার উপর দিয়ে লাল সবুজ পতাকা উড়ছে সগৌরবে।

    শ্বেতবর্ণের এ মনুমেন্টের উচ্চতা ৬০ ফুট এবং পরিসীমা ৮৫.৭৫ ফুট, যা একটি গোলাকার ফোয়ারার মাঝখানে স্থাপিত। এতে ঝর্ণা, লাইট ও সাউন্ড সিস্টেম রয়েছে। বিভিন্ন দিবস উপলক্ষ্যে লাইট ও সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহার করা হয়।

    মূল ভাস্কর্য স্বাধীনতা সংগ্রামকে ঘিরে সড়ক দ্বীপের চত্বরটিতে মোট ১১৬টি ভাস্কর্য রয়েছে। সেগুলো দেশ-বিদেশের শতাধিক কবি, সাহিত্যিক, শিক্ষাবিদ, সমাজ সংস্কারক, বিপ্লবী, রাজনীতিক, বিজ্ঞানীর আবক্ষ ভাস্কর্য। এসব ভাস্কর্যের কোনোটি একক, কোনোটি যুক্ত।

    এখানে রয়েছে বঙ্কিমচন্দ্র, ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, জগদীশ চন্দ্র বসু, মাইকেল মধুসুদন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, লালন, কাজী নজরুল ইসলাম, সুকান্ত, ড. মো. শহীদুল্লাহ, শিল্পী সুলতান, জিসি দেব, সুভাস বোস, কামাল আতাতুর্ক, মহাত্মা গান্ধী, রাজা রামমোহন রায়, মাও সে তুং, ইয়াসির আরাফাত, কর্নেল ওসমানী, তাজউদ্দীন আহমদ, সিরাজ সিকদারের প্রতিকৃতি। ভাস্কর শামীম সিকদারেরও দুটি প্রতিকৃতি রয়েছে। আরও রয়েছে একটি হাতির চিত্তাকর্ষক ভাস্কর্য।

    শামীম সিকদার নিয়োজিত কিউরেটর মো. ইমরান হোসেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “স্বাধীনতা সংগ্রাম ভাস্বর্যটি মূলত আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামকে রিপ্রেজেন্টের একটা জায়গা। এই জায়গাটাতে শুধু বাংলাদেশের নয়, সারা বিশ্বের স্বাধীনতাকামী, যারা মেহনতি মানুষের কথা বলেছেন, মানুষের মুক্তির কথা বলেছেন তাদেরকে একটা রিপ্রেজেন্ট করা হয়েছে।

    “স্বাধীনতা সংগ্রাম চত্বরের মূল বিশেষত্ব হলো এখানে শুধু মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের নয়, স্বাধীনতার সাথে যারা রিলেটেড, স্বাধীন দেশের জন্য মূল যে চালিকা শক্তি শিল্প-সংস্কৃতির স্বাধীনতাকেও এখানে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। এখানে কিন্তু শিল্পের ধারক-বাহকদেরও ভাস্কর্য আছে। সকল ধরনের মানুষদের নিয়েই কিন্তু স্বাধীনতা সংগ্রাম চত্বর গড়ে উঠেছে।”

    রক্ষণাবেক্ষণে অর্থের অভাব

    স্বাধীনতা সংগ্রাম ভাস্কর্য চত্বরের নির্মাতা শামীম সিকদার হলেও এর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে রয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একজন নিরাপত্তা প্রহরী ও একজন মালী এখানে নিয়োজিত করা হয়েছে।

    তবে তা রক্ষণাবেক্ষণে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোনো বাজেট নেই বলে জানান কিউরেটর মো. ইমরান হোসেন।

    তিনি বলেন, “শিল্পকর্ম রক্ষণাবেক্ষণের জন্য কিন্তু ভালো বাজেটের দরকার। বাজেট না থাকায় দীর্ঘদিন বেহাল ছিল এই ভাস্কর্য চত্বর। বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে বটগাছ জন্মেছিল। ভাস্কর শিল্পী শামীম সিকদার ব্রিটেন থেকে দেশে ফিরে ১০ লক্ষ টাকা খরচ করে এটা মেরামত করেছেন, রঙ করিয়েছেন।

    “বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যদি প্রতি বছর ভাস্কর্যগুলোর জন্য বরাদ্দ রাখত, তাহলে তা সংরক্ষণ ও সৌন্দর্যের জন্য কাজ করা যেত।”

    অর্থের অভাবে সব ভাস্কর্যে নামফলক দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না জানিয়ে ইমরান বলেন, “প্রত্যেকটা ভাস্কর্যে যদি সংক্ষিপ্ত পরিচিতি তুলে ধরা যেত, তাহলে তরুণ প্রজন্ম এই শিল্পকর্ম সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারত। সংস্কৃতি বিকাশে এটা অনেক বড় একটা ভূমিকা রাখতে পারে। এগুলো করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের উদ্যোগ নেওয়া উচিত।”

    এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমাদের অনেক সীমাবদ্ধতা আছে। মানসম্পন্নভাবে রক্ষণাবেক্ষণের জন্য আমাদের অনেক কিছুই নেই।

    “গুণগত ও মানসম্পন্ন কোনো কিছু করতে হলে ভালো ফিন্যান্সিয়াল সাপোর্ট থাকতে হয়। আর্থিক সাপোর্টের জন্য আমরা বিষয়টি ইউজিসির কাছে উপস্থাপন করব।”

    ================================================
    ভাস্কর শামীম সিকদার আর নেই
    https://bangla.bdnews24.com/bangladesh/dvovbjhspj

    স্বোপার্জিত স্বাধীনতাসহ অনেক ভাস্কর্যের শিল্পী শামীম সিকদার আর নেই।

    একুশে পদকপ্রাপ্ত ভাস্কর শামীম সিকদার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার সাবেক অধ্যাপক।

    ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার বিকালে তার মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছেন শামীম সিকদারের ভাস্কর্যগুলোর কিউরেটর মো. ইমরান হোসেন।

    তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, নিজের শিল্পকর্ম সংরক্ষণ করতে কয়েক মাস আগে যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফিরেছিলেন শামীম সিকদার। দেশে ফিরে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। প্রথমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। পরে তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। সেখানে তিনি প্রায় এক সপ্তাহ লাইফ সাপোর্টে ছিলেন।

    সিরাজ সিকদারের বোন শামীম সিকদারের বয়স হয়েছিল ৭০ বছর। তিনি এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন। তারা দুজনই যুক্তরাজ্য প্রবাসী।

    শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য বুধবার বেলা ১১টায় শামীম সিকদারের লাশ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ প্রাঙ্গণে নেওয়া হবে জানান ইমরান হোসেন।

    তিনি বলেন, চারুকলা অনুষদে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তার মরদেহ শহীদ মিনার কিংবা তার যে কোনো একটি ভাস্কর্য প্রাঙ্গণে নিয়ে যাওয়া হতে পারে। তার পরিবারের সদস্য ও শিল্পীদের সঙ্গে কথা বলে দাফনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

    মোহাম্মদপুরে শামীম সিকদারের বাবা-মায়ের কবরের পাশে তাকে দাফনের একটি পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান ইমরান।

    শামীম সিকদারের জন্ম ১৯৫২ সালের ২২ অক্টোবর। তিনি গত শতকের আশির দশকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটে শিক্ষকতা শুরু করেন। অধ্যাপক হিসেবে অবসর নেওয়ার পর ৮ বছর আগে তিনি ইংল্যান্ডে চলে যান।

    ১৯৮৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির পাশে স্বোপার্জিত স্বাধীনতা ভাস্কর্যটি তৈরি করেন শামীম সিকদার। জগন্নাথ হলের সামনে স্বাধীনতার সংগ্রাম ভাস্কর্যটিও তারই করা।

    ২০০০ সালে একুশে পদক পান শামীম সিকদার।

  6. মাসুদ করিম - ২৫ মার্চ ২০২৩ (২:৩৯ পূর্বাহ্ণ)

    Raccoon dog data sparks new debate about Covid origins
    https://today.thefinancialexpress.com.bd/last-page/raccoon-dog-data-sparks-new-debate-about-covid-origins-1679678767

    New evidence that raccoon dogs were at the Chinese market where Covid is suspected to have first infected humans has reignited debate over the origin of the pandemic.

    The researchers who unexpectedly stumbled over the genetic data say that it supports-but cannot definitively prove-the theory that the virus originated in animals, possibly first jumping over to humans at the market in the city of Wuhan.

    The issue has proved divisive for the scientific community and even different US government agencies, with some maintaining that the virus likely leaked from a Wuhan lab-a claim that China has angrily denied.

    Maria Van Kerkhove, the World Health Organization’s technical lead on Covid, said the new data “doesn’t give us the answer of how the pandemic began, but it does provide more clues”.

    The data comes from swabs collected by a Chinese team in January and February 2020 at the Huanan Seafood Market, the site of one of the earliest Covid clusters, before it was shut down and cleared of animals.

    International researchers including Florence Debarre, an evolutionary biologist at France’s CNRS research agency, were surprised to come across the data on the GISAID global science database earlier this month.

    They managed to download the data before it was removed from GISAID at the request of the Chinese researchers who first posted it.

    Debarre and colleagues informed the WHO about their discovery last week, when some media outlets started reporting on the data’s existence.

    This week the researchers published a report, which has not been peer-reviewed, saying that DNA from the samples shows that raccoon dogs, palm civets, Amur hedgehogs and bamboo rats were present at the market.

    Raccoon dogs, whose closest relatives are foxes, are in particular known to be able to carry and transmit viruses similar to SARS-CoV-2, which causes the Covid disease.

    That means they could have acted as an intermediary host between humans and bats, in which Covid is suspected to have originated.

    Some of the samples containing raccoon dog DNA were also positive for SARS-CoV-2.

    However because the samples were taken from sites at the market and not directly from the animals, it was not possible to prove the raccoon dogs had Covid.

    Notably, there was very little human DNA in one of the positive samples, raising the likelihood that it was the raccoon dog that had the virus.

    “We cannot rigorously demonstrate that the animal was infected, but it is a plausible explanation,” Debarre told AFP.

    Even if it could be proved that the raccoon dogs were infected, it would be difficult to show they gave Covid to humans-and not the other way around.

    The data is “one additional piece of the puzzle that supports an origin of the pandemic linked to Wuhan’s animal trade,” said virologist Connor Bamford of Queen’s University Belfast.

    But “it is unlikely to provide irrefutable evidence,” he said on The Conversation website.

    There have been increasing calls for all information on the origins of Covid to be publicly released.

    US President Joe Biden signed a law earlier this week declassifying intelligence material on the subject, after his energy department concluded with “low confidence” that the virus probably came from a lab.

    That assessment contradicted the conclusion of several other US agencies-but not the FBI.

    After being informed of the new Huanan samples, the WHO again called on China to release all its data from the early days of the pandemic.

    “These data could have-and should have-been shared three years ago,” WHO chief Tedros Adhanom Ghebreyesus said late last week.

    Alice Hughes, an expert in biodiversity analytics at the University of Hong Kong, said that some researchers in China had known about the existence of the samples since April 2020.

    Hughes told AFP this “critically important” information should have been made public earlier, adding that she believed it was “very likely that this is the source of spillover of SARS-CoV-2”.

    The authors of the new report said that more data was still missing.

    There is “absolutely crucial data which sheds light on the start of the pandemic” that the researchers “cannot share because it’s not ours,” Debarre said.

    “The more people who look into it, the more we will be able to extract information,” she added.

Have your say

  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.