যৌন হয়রানী: একই সপ্তাহে উচ্চ আদালতের দু'টি যুগান্তকারী রায়

মাত্র তিন দিনের ব্যবধানে বাংলাদেশের হাইকোর্ট যৌন হয়রানী প্রতিরোধে দু'টি দিকনির্দেশনামূলক রায় দিয়েছে। সবার জ্ঞাতার্থে মামলা দু'টোর বিস্তারিত তথ্যাবলী দেয়া হল: রায়#এক বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবি সমিতি (BNWLA) বনাম বাংলাদেশ রায়#দুই অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী এবং অন্যান্য বনাম জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় [...]

মাত্র তিন দিনের ব্যবধানে বাংলাদেশের হাইকোর্ট যৌন হয়রানী প্রতিরোধে দু’টি দিকনির্দেশনামূলক রায় দিয়েছে। সবার জ্ঞাতার্থে মামলা দু’টোর বিস্তারিত তথ্যাবলী দেয়া হল:

রায়#দুই
অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী এবং অন্যান্য বনাম জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

(সময়াভাবে এই প্রেস রিলিজটি অনুবাদ করা গেল না বলে দুঃখিত। তবে কেউ অনুবাদে আগ্রহী হলে লিখে পাঠাতে পারেন)

High Court Holds Illegal University Decisions to Exonerate Teacher of Charges, Expel Students. Directs Fresh Inquiry based on New Sexual Harassment Guidelines

Summary

The High Court gave a landmark judgment today in the first application of its Sexual Harassment Guidelines pronounced on 14 May.

One year ago, in May 2008, four women students at Jahangirnagar University made complaints of serial sexual harassment against their teacher and the Chairperson of the Drama Department, Sanowar Hossain Sunny. The University appointed three separate inquiry committees, which examined witnesses and issued reports with clear findings against the teacher. During this period, the students continued to face threats and harassment. In September 2008, the University announced that Sunny was ‘exonerated of all charges of sexual harassment as they had not been proved beyond a reasonable doubt’. Later the University also proceeded to pass orders of temporary expulsion against four of the women complainants, and two male students who had given evidence in their favour.

Prof Sirajul Islam Chowdhury and others filed a public interest petition challenging the University’s decision and actions. Later the victim-complainants and the two other students also became parties to the petition (Prof Sirajul Islam and others v Jahangirnagar University and others Writ Petition 9414 of 2008).

Today the High Court held that the decisions taken by the University to exonerate Sunny on the one hand, and to expel the students on the other, were both without lawful authority. It also directed the University to hold a fresh inquiry into the incident, with independent persons, on the basis of the new Guidelines on Sexual Harassment pronounced in BNWLA v Bangladesh . Citing judgments of the Supreme Courts of Bangladesh, India and Pakistan, the Court held that corroboration was not always required to prove allegations of sexual violence, and further that the standard of ‘beyond a reasonable doubt’ could not be applicable in cases of this nature, relating to disciplinary inquiries regarding allegations of sexual harassment. The Court also noted that Jahangirnagar University authorities had failed ‘for reasons best known to themselves’ to adopt their own guidelines on sexual harassment, and therefore in the absence of any applicable law, the High Court’s new guidelines should be applied to any fresh inquiry.

A Division Bench comprising Justice Syed Mahmud Hossain and Justice Quamrul Islam Siddiqi passed the judgment today.

The writ petition was filed by eminent citizens Prof. Sirajul Islam Chowdhury and Kamal Lohani, and three human rights organisations, Ain o Salish Kendra, Nijera Kori and Kormojibi Nari.1 Four women students of Jahagirnagar University who had made complaints of sexual harassment, and two others who gave evidence, were also joined as petitioners during the course of the hearing.

Sara Hossain, with Ramzan Ali Sikder, Ainun Nahar Lipi and Abantee Nurul appeared for the public interest petitioners. Ruhul Quddus Babu appeared for the students.

Background

Complaints: In May 2008, four women students submitted written complaints of serial sexual harassment against Asst Prof Sanowar Hossain Sunny of the Drama and Dramatic Theory Department. The University set up a preliminary inquiry committee, and then a further verification committee both of which made prima facie findings against the teacher. On consideration of their reports, the Syndicate established a Full Inquiry Committee under Section 44 of the Jahangirnagar University Act. This report was submitted to the Syndicate which passed a decision in September to exonerate the said teacher of all charges of sexual harassment on the ground that in the absence of eyewitnesses these had not been ‘proved beyond reasonable doubt’. This decision was passed despite clear findings by each Inquiry Committee against the teacher, including findings by the Final Inquiry Committee of misconduct against the teacher, and that his behaviour was ‘wholly improper and unbefitting of a teacher’ and recommending action against him. The University, despite having powers to do so, had never suspended the teacher pending inquiry.

Appeals filed by the students to the Chancellor of the University, also the President of the country, went unheeded.

Expulsion and Threats: In October, the University then reinstated the teacher. Following his return to the campus, and an altercation with students, the accused teacher made a complaint against six students (two of whom were among the women who had made complaints against him and two of whom were male students who had given evidence against him). The Syndicate moved the same day to pass orders of temporary expulsion on these six students. A section of the Jahagirnagar University Teachers Association then held processions and meetings demanding the immediate expulsion of the students, and refused to hold classes unless action was taken. Some of these teachers were at the same time involved in the disciplinary proceedings against the students.

During this entire period, the victim complainants and others witnesses had been subjected to repeated threats and warned that unless they stopped pursuing their claims against the teacher, they would face dire consequences. These threats were reported to the University Authorities but no action was taken.

High Court Orders: On 27 October, the High Court issued a Rule Nisi on the University and also stayed the orders of temporary expulsion passed on the students. It asked Jahangirnagar University Authorities to show cause among others as to why its to exonerate Sanower Hossain Sunny should not be declared to be without lawful authority and why a fresh inquiry should not be held into the matter. It also stayed operation of the orders of the Syndicate suspending six students of the University including four of the women who had originally made complaints against this teacher and two other who had given evidence against him.

The University in its response to the Court stated that it had acted with ‘due process’ and justified the action taken against the student victims of sexual harassment. As a result of the High Court’s orders, it submitted copies of the reports of the three Inquiry Committees to the Court.

Inquiry Committee Findings: As a result of the High Court’s orders, the University submitted copies of the reports of the three Inquiry Committees to the Court. The first Committee in its report stated that the allegations are not baseless and requires formal investigation (“….কমিটির নিকট আনীত অভিযোগের ভিত্তি অমূলক নয় এবং অভিযোগ প্রমাণের জন্য আনুষ্ঠানিক তদন্তের প্রয়োজন আছে…..”). The Second Inquiry Committee concluded that the allegations have sufficient basis (“….সার্বিক পর্যালোচনায় তদন্ত কমিটির মনে হয়েছে ছানোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের প্রতি যৌন নিপীড়নের অনেকটা ভিত্তি রয়েছে…”). The third full structured Inquiry Committee held him responsible for misconduct (“পারিপার্শ্বিক অবস্থা ও প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায় যে জনাব ছানোয়ার হোসেন এর আচার-আচরণ অশিক্ষকসুলভ, অশোভন এবং অগ্রহণযোগ্য। এজন্য তাকে অসদাচরণের দায়ে দোষী সাব্যস্ত করা হলো…”).

Sexual Harassment Guidelines: It should be noted that calls for formulation of Guidelines on Sexual Harassment had first come from students and teachers of Jahagirnagar University, in the wake of earlier incidents of serial sexual harassment, from more than ten years ago, involving both teachers and students as perpetrators. Although the JU Syndicate had mandated the framing of such Guidelines, it ultimately failed to adopt these Guidelines.

In the meantime, in 2008, the University Grants Commission, in the context of the new reports of sexual harassment surfacing at JU and Dhaka University, and in response to calls from women’s organisations, including Bangladesh Mohila Porishod, set up a drafting committee to prepare new Guidelines. This Committee drew heavily on the Jahangirnagar draft, and revised it following consultations with civil society organisations and academics. But ultimately the Education Ministry failed to adopt the Guidelines the decision. Earlier this month, it held that it would not proceed with the UGC guidelines, but instead called on each University to frame its own rules and regulations – leaving victims of sexual harassment with no effective redress. In this context, the High Court’s Guidelines in Bangladesh National Women Lawyers Association v Bangladesh, pronounced on 14 May 2009, have filled a much needed gap in the law, and today’s judgment shows how they can be immediately utilised to open up new possibilities for legal protection and also to hold authorities responsible for creating a violence free educational environment. (For further information, please contact Sara Hossain and Ruhul Quddus.)

রায়#এক
বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবি সমিতি (BNWLA) বনাম বাংলাদেশ

(প্রথম আলোর প্রতিবেদন থেকে সরাসরি উদ্ধৃত। মামলার আরও বিস্তারিত তথ্য শিগগিরই সংযুক্ত হবে)

যৌন হয়রানি বন্ধে নীতিমালা ঘোষণা হাইকোর্টের অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়া পর্যন্ত পরিচয় প্রকাশ করা যাবে না
নিজস্ব প্রতিবেদক
যৌন হয়রানি রোধে কয়েকটি দিকনির্দেশনা উল্লেখ করে একটি নীতিমালা করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। গতকাল বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের এক রায়ে যৌন হয়রানির সংজ্ঞা নির্ধারণ করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কর্মস্থলে এ বিষয়ে অভিযোগকেন্দ্র গঠন এবং অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়া পর্যন্ত নির্যাতিত ও অভিযুক্ত ব্যক্তির পরিচয় প্রকাশ না করার কথা বলা হয়।
বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকীর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন। জাতীয় সংসদে এ বিষয়ে আইন প্রণয়ন না হওয়া পর্যন্ত এই নির্দেশনাগুলো পালনের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। সংবিধানের ১১১ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী হাইকোর্টের দেওয়া দিকনির্দেশনামূলক রায় পালন করা বাধ্যতামূলক।
২০০৮ সালের ৭ আগস্ট কর্মস্থল ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নারী ও শিশুদের যৌন হয়রানি প্রতিরোধের জন্য দিকনির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্ট বিভাগে রিট করা হয়। বাংলাদেশ মহিলা আইনজীবী সমিতির নির্বাহী পরিচালক সালমা আলী জনস্বার্থে এ রিট দায়ের করেন। আদালত ওই দিন শুনানি শেষে কেন নতুন আইন বা বিধিমালা প্রণয়ন করার নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানাতে সরকারের প্রতি রুল জারি করেন।
রুলে আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়, মহিলাবিষয়ক মন্ত্রণালয়, শ্রম মন্ত্রণালয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন, ঢাকা ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় কতর্ৃপক্ষসহ ১৯টি প্রতিষ্ঠানকে জবাব দিতে বলা হয়।
রায়ে বলা হয়, দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কর্মস্থলে অভিযোগকেন্দ্র থাকবে। এই অভিযোগকেন্দ্র পরিচালনার জন্য ন্যূনতম পাঁচ সদস্যের কমিটি থাকবে। কমিটির প্রধান হবেন একজন নারী। এ ছাড়া কমিটিতে একাধিক নারী সদস্যও থাকবেন। কমিটি কোনো অভিযোগ পেলে তদন্ত ও অনুসন্ধান শেষে পুলিশের কাছে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে পাঠাবেন। এরপর দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী অপরাধের ধরন ও মাত্রা অনুযায়ী বিচার বিভাগ যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন। নির্যাতন সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া এবং পুলিশের কাছে অভিযুক্তকে সোপর্দ করার আগে নির্যাতিত ও অভিযুক্ত ব্যক্তির কোনো পরিচয় প্রকাশ করা যাবে না।
যৌন নিপীড়নের সংজ্ঞায় আদালত বলেন, শারীরিক ও মানসিক যেকোনো ধরনের নির্যাতন যৌন হয়রানির পর্যায়ে পড়ে। ই-মেইল, এসএমএস, টেলিফোনে বিড়ম্বনা, পর্নোগ্রাফি যেকোনো ধরনের চিত্র, অশালীন উক্তিসহ কাউকে ইঙ্গিতপূর্ণভাবে সুন্দরী বলাও যৌন হয়রানির পর্যায়ে পড়ে। শুধু কর্মক্ষেত্র ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই হয়রানির ঘটনা ঘটে না। রাস্তায় চলাচলের ক্ষেত্রে যেকোনো ধরনের অশালীন উক্তি, কটূক্তি করা, কারও দিকে খারাপ দৃষ্টিতে তাকানো প্রভৃতি যৌন হয়রানি হিসেবে গণ্য হবে।
আদালত চার দিন শুনানি করেন। শুনানিতে যৌন হয়রানির ওপর ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রায় তুলে ধরা হয়। ভারতের রাজস্থান বনাম বিশাখা মামলায় আদালতের দেওয়া রায় এ ক্ষেত্রে গুরুত্বসহকারে উল্লেখ করা হয়। বলা হয়, যৌন হয়রানির ওপর ভারতে এখনো কোনো আইন করা হয়নি। তার পরও বিশাখা মামলায় আদালতের দেওয়া রায়ের দিকনির্দেশনা অনুযায়ী ভারতে যৌন নিপীড়ন রোধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।
রায়ে আরও বলা হয়, কোনো নারীকে ভয়ভীতি প্রদর্শন, যেকোনো ধরনের চাপ প্রয়োগ করা, মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে সম্পর্ক স্থাপন করা, অশালীন চিত্র, দেয়াললিখন ও আপত্তিকর কোনো ধরনের কিছু করা যৌন হয়রানির মধ্যে পড়ে।
তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা সুলতানা কামাল প্রথম আলোকে বলেন, হাইকোর্টের দেওয়া রায় ইতিবাচক। সংসদকেই আইন প্রণয়নের সুযোগ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু যত দিন এ বিষয়ে আইন প্রণয়ন করা না হয়, তত দিন দিকনির্দেশনাগুলো কার্যকর থাকবে। এর ফলে আইন প্রণয়নের সময় হাইকোর্টের রায়ে কোনো ধরনের দুর্বলতা থাকলে তা বেরিয়ে আসবে, যা আইন প্রণয়নের ক্ষেত্রে সরকারকে সহায়তা করবে।
রিট আবেদনকারী সালমা আলী তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের বলেন, হাইকোর্ট যুগান্তকারী রায় দিয়েছেন। এর ফলে নারী-পুরুষের সমতা নিশ্চিত হবে। নারীর সার্বিক ক্ষমতায়নে এই রায় মাইলফলক হয়ে থাকবে।
রিট আবেদনকারীর আইনজীবী ফৌজিয়া করিম বলেন, কর্মক্ষেত্র, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও রাস্তায় চলাচলের ক্ষেত্রে হাইকোর্টের রায় সংশ্লিষ্ট সবাইকে পালন করতে হবে।
রায়ে যৌন নিপীড়ন ও শাস্তি সম্পর্কে সর্বস্তরের মানুষকে সচেতন করা এবং কার্যকর শাস্তির বিধান করে এ বিষয়ে আইন প্রণয়নে তাগিদ দেওয়া হয়।
মহিলা আইনজীবী সমিতির পক্ষে ফৌজিয়া করিম রিটের শুনানিতে অংশ নেন। তাঁকে সহযোগিতা করেন ফাহিমা নাসরীন, রেবেকা সুলতানা, রেহানা সুলতানা প্রমুখ।
সরকারের পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল রাজিক আল জলিল জানান, আইনগত কোনো সমস্যা তৈরি না হলে হাইকোর্টের এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হবে না।
এদিকে ব্যারিস্টার সারা হোসেন জানিয়েছেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন হয়রানির ঘটনায় দায়ের করা পৃথক রিট মামলার শুনানিও শুরু হয়েছে।

  1. Represented by Sultana Kamal, ED, ASK, Khushi Kabir, Coordinator, Nijera Kori and Shirin Akhter, President KN respectively. []

Have your say

  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.