রোহিঙ্গাদের উপর সংঘটিত জনজাতিনিধনযজ্ঞের বিচার এবং রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবাসন দুই পথেই চলতে হবে বাংলাদেশের কূটনীতি

বার্মার রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারে প্রত্যাবর্তনের দ্বিপাক্ষিক সমাধান প্রচেষ্টার সাথে আমরা যখন বার্মায় রোহিঙ্গাদের উপর সংঘটিত জনজাতিনিধনযজ্ঞের বিচার চাওয়াকে হুমকি মনে করি তখন বুঝতে হবে আমরা দুটোর মধ্যে পার্থক্য না ধরতে পেরে ভুল পন্থায় চিন্তার দিকে পা বাড়াচ্ছি [...]

বার্মা রাখাইনে রোহিঙ্গাদের জাতিগতভাবে নিশ্চিহ্ন করে দিতে চেয়েছিল কিনা, রোহিঙ্গাদেরকে তাদের আবাসভূমি রাখাইন অঞ্চল থেকে বিতাড়িত করতে নিপীড়ন ধর্ষণ ও হত্যার পরিকল্পিত পদক্ষেপ নিয়েছিল কিনা এই বিচারের জায়গাটা আন্তর্জাতিক অপরাধ বিচারের জায়গা এটা আমাদেরকে সবার আগে বুঝতে হবে। এবং এটা যদি আমরা বুঝতে পারি তাহলে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের মিয়ানমারের বিচার চাওয়ার সাথে একাত্ম হয়ে বাংলাদেশ সরকারের মিয়ানমারের বিচার চাওয়ার মধ্যে আর কোনো দ্বিধাই থাকতে পারে না।

বার্মার রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারে প্রত্যাবর্তনের দ্বিপাক্ষিক সমাধান প্রচেষ্টার সাথে আমরা যখন বার্মায় রোহিঙ্গাদের উপর সংঘটিত জনজাতিনিধনযজ্ঞের বিচার চাওয়াকে হুমকি মনে করি তখন বুঝতে হবে আমরা দুটোর মধ্যে পার্থক্য না ধরতে পেরে ভুল পন্থায় চিন্তার দিকে পা বাড়াচ্ছি।

আর এভাবে পার্থক্য না বুঝলে আমি বিরক্ত হই।

বাংলাদেশের সামনে স্পষ্ট পথ হল বার্মায় রোহিঙ্গাদের উপর সংঘটিত আন্তর্জাতিক অপরাধসমূহের বিচার করার যে সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের প্রাথমিক পদক্ষেপে সেই সম্ভাবনার প্রতি পূর্ণ সমর্থন জানিয়ে বিচারের ক্ষেত্র প্রস্তুত করার সম্পূর্ণ সহযোগিতার দিকে অগ্রসর হওয়া।

আর রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবর্তন ও প্রত্যাবাসনের ক্ষেত্রে দ্বিপাক্ষিক অবস্থানকে সমুন্নত রেখে বার্মার উপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়িয়ে এগিয়ে যাওয়া।

আমি চাই বাংলাদেশ কোনোভাবেই যেন বার্মায় রোহিঙ্গাদের উপর সংঘটিত আন্তর্জাতিক অপরাধের বিচার এবং রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবর্তন ও প্রত্যাবাসনের বাংলাদেশ মিয়ানমারের যৌথ প্রচেষ্টার সমঝোতা স্মারককে গুলিয়ে না ফেলে।

বাংলাদেশ উভয় পথেই নিজেকে উচ্চকিত রাখবে এটাই ঠিক কূটনীতি কারণ বার্মা যেমন রোহিঙ্গাদের উপর সংঘটিত আন্তর্জাতিক অপরাধে অপরাধী তেমনি বার্মাকে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবর্তন ও প্রত্যাবাসনও করতেই হবে।

ব্যক্তিগত ব্লগে : পার্থক্য না বুঝলে আমি বিরক্ত হই

মাসুদ করিম

লেখক। যদিও তার মৃত্যু হয়েছে। পাঠক। যেহেতু সে পুনর্জন্ম ঘটাতে পারে। সমালোচক। কারণ জীবন ধারন তাই করে তোলে আমাদের। আমার টুইট অনুসরণ করুন, আমার টুইট আমাকে বুঝতে অবদান রাখে। নিচের আইকনগুলো দিতে পারে আমার সাথে যোগাযোগের, আমাকে পাঠের ও আমাকে অনুসরণের একগুচ্ছ মাধ্যম।

৫ comments

  1. Pingback: পার্থক্য না বুঝলে আমি বিরক্ত হই | প্রাত্যহিক পাঠ

  2. মাসুদ করিম - ১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ (১০:৫৮ পূর্বাহ্ণ)

  3. মাসুদ করিম - ১২ মার্চ ২০১৯ (৮:৪২ অপরাহ্ণ)

    No impediment to opening trial against Myanmar: ICC

    There is no problem in starting trial by the International Criminal Court (ICC) against those who committed atrocities against the Rohingya, even though Myanmar is not a party to the Court, a senior official said.

    Phakiso Mochochoko, director of the ICC and a member of the visiting ICC delegation, made the remarks while speaking to reporters on Monday.

    “If the ICC judge finds that in this case legal criteria are fulfilled and if the judge grants the prosecutor the permission to launch investigation, the fact that Myanmar is not a party to ICC will not create any hindrance,” said Mr Mochochoko.

    The prosecutor is committed to making the persons accountable who were responsible for committing atrocities against the Rohingya, he added.

    The ICC director made it clear the Court’s prosecution is not against any state; rather it is against individuals who were responsible for the atrocities.

    “The prosecution will collect evidence against those who were responsible, who were in command and who gave instructions for the crimes committed against the Rohingya,” he said.

    “There is no doubt that crimes were committed against the Rohingya. The prosecution will collect evidence to ensure a rational end to attribute the accountability to individuals,” he said.

    Responding to a question, he said, in this case allegations have been made and now the prosecutor will have to collect evidence to prove those allegations “beyond any reasonable doubt”.

    About their visit, he said that they are in the country to conduct operational assessment.

    This is a very early stage, which will be followed by legal assessment, he said.

    “Legal assessment is conducted to establish legal criteria and the trial starts when legal criteria are met,” he said narrating how trial is initiated.

    The delegation arrived in Dhaka on Tuesday and is scheduled to leave today (Tuesday).

    Statement of the Office of the Prosecutor of the International Criminal Court at the conclusion of its visit to Bangladesh (6-11 March 2019)

    Today, the Office of the Prosecutor of the International Criminal Court (“ICC” or the “Court”) concluded its first visit to the People’s Republic of Bangladesh in the context of the on-going preliminary examination concerning the alleged deportation of the Rohingya people from Myanmar to Bangladesh. The purpose of this visit was to engage with relevant stakeholders, explain the preliminary examination process, and travel to the refugee camps with a view to informing the Office’s ongoing assessment.

    On behalf of the Prosecutor, Mrs Fatou Bensouda, the delegation would like to express its gratitude to the Government of the People’s Republic of Bangladesh for providing its support to this visit and facilitating meetings with the relevant national authorities. During this past week, the delegation had constructive exchanges with senior officials from the Ministries of Foreign Affairs; Law, Justice and Parliamentary Affairs; and Home Affairs; as well as various law enforcement agencies.

    The delegation also had the opportunity to exchange views with representatives of various agencies of the United Nations and members of the diplomatic community, as well as academics from the University of Dhaka’s Centre for Genocide Studies.

    In Cox’s Bazar, the delegation visited the refugee camps and met with government authorities, humanitarian agencies and NGOs, as well as a number of victims’ representatives. The delegation listened carefully to their views and concerns.

    The insights gained from the visit will continue to inform the Office’s ongoing assessment of the situation.

    The independent and impartial preliminary examination of the situation in Bangladesh/Myanmar is on-going and will follow its course. A preliminary examination is not an investigation, but an assessment of the Rome Statute criteria to decide whether an investigation into the situation at hand is warranted. Therefore, during this mission, as is standard practice of the Office, the delegation did not collect evidence or perform any other investigative activities.

    The field visit enabled the Office, however, to hold productive meetings in Bangladesh, and to fully appreciate the sheer magnitude and severity of this human tragedy.

    The Office is committed to making continued progress on the preliminary examination process and is grateful to the authorities of Bangladesh and many other partners for their strong support.

  4. মাসুদ করিম - ২৭ জুন ২০১৯ (৩:৫২ পূর্বাহ্ণ)

  5. মাসুদ করিম - ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ (৪:০৮ অপরাহ্ণ)

Have your say

  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.