প্রয়োজনে ঘৃণা করার দুঃসাহস দেখাব

ইদানীং দেশের একজন বড় আইনজীবী প্রায়শই বলেন, চলমান দুর্নীতি বিরোধী অভিযান সফল করতে এবং সমাজকে দুর্নীতির রাহুমুক্ত করতে তিনি প্রয়োজনে জীবন দেবেন। জীবন দেয়া সহজ কাজ নয়। জলপাই-আশ্রিত কেউ জীবন দেয় না। ফলে, এটা তাঁর কথার কথা। মানে বাজে কথা। ইদানীং তিনি আরো একটি কাজ প্রায়ই করেন। বেশ রেগে যান, ধমক-ধামক দেন, চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন বক্তৃতা-সভায়। বলেন, “যথেষ্ট হয়েছে — আসুন, এই সরকারের সাথে একযোগে কাজ করি।” তিনি বলেন, “এ সরকারের কোনো মেয়াদ নেই। ইলেকশন না হলে তার দায়ভার নেই।” প্রয়োজনে তিনি সাংবিধানিক ব্যাখ্যা দেবেন। কারণ, জনগণ সকল ক্ষমতার মালিক হলেও সংবিধানের মালিক হতে পারেনি। আজ অবধি নয়। এটার মালিক তিনি। এটা বোঝেন কেবল তিনি এবং আরো কিছু স্বঘোষিত সংবিধান বিশেষজ্ঞ। আর কিছু চাটুকার এঁদের মহান করে তোলেন, প্রতিনিয়ত।

সুপ্রীম কোর্ট সংবিধানের অভিভাবক। এতদিন এটাই জানতাম। কিন্তু বর্তমান সরকারের মেয়াদ প্রশ্নে, স্থানীয় ও জাতীয় নির্বাচন প্রশ্নে, দুদক-এর কার্যক্রম প্রশ্নে এবং আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ আইনগত প্রশ্নে সুপ্রীমকোর্টের মতামত নেয়ার বদলে বড় আইনজীবীর মতামত চাওয়া হচ্ছে। তিনি বিধান দিয়ে চলেছেন, শাস্ত্র বিচার করে। তাঁর এই বিধান যেন ইতিহাসের অমোঘ নিয়ম। রাষ্ট্রীয় প্রচার চালানো হচ্ছে এভাবেই। সন্তানের করুণ পরিণতি দেখছেন অভিভাভক, অসহায়-স্বাধীন চোখে!

অনেক আগে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালিকে সতর্ক করেছিলেন — শাস্ত্রবেত্তা এই ব্রাহ্মণকুল অনেক রকম বিধান দিয়ে থাকেন, দক্ষিণার জোরে। কোত্থেকে দক্ষিণা আসছে, জানতে চাই, মনে সন্দেহ বাড়ছে। এবং তা জোরালো হচ্ছে। মানুষের ধনসম্পদ যারা লুণ্ঠন করে তারা তস্কর। সংবিধান লংঘন করে দেশ যারা শাসন করে তারা ডাকাত। সবচেয়ে বড় দুর্বৃত্ত। একটা জাতির সম্মিলিত ইচ্ছার দলিল সংবিধান। এই দলিলের তোয়াক্কা না করে দেশ চালানো শুধু দুর্নীতিই নয়, দেশদ্রোহিতাও বটে। এই দেশদ্রোহীদের সাথে একই ছাতার তলে বসে দুর্নীতি নির্মূলের ডাক দেয়া এবং জীবন বলিদান করার ঘোষণা দেয়া জাতির সাথে প্রতারণার শামিল। ১৬৬ জনকে ক্রস ফায়ার করে, আদিবাসী হত্যা করে, তাদের জীবন বিষিয়ে তুলে, সাংবাদিক নির্যাতন করে, শিক্ষকদের অপমান করে, জনগণের মৌলিক মানবিক অধিকার বছরের পর বছর শিকেয় তুলে রেখে, শ্রমিক অসন্তোষ ও মূল্য সন্ত্রাস ছড়িয়ে দিয়ে জীবনের সর্বক্ষেত্রে চূড়ান্ত ধস নামানোর আয়োজন যারা আজ করছে — তারা দেশদ্রোহী, সন্ত্রাসী, বর্বর। এদের সহযোগী শাস্ত্রবিশারদগণ। এখনও সম্মান দিতে চাই, যেমনটা সবসময় দিয়েছি। জাতিকে বিভ্রান্ত করা থেকে নিজেকে বিরত রাখুন। নইলে ঘৃণা করার দুঃসাহস দেখাব।

সৈকত আচার্য

আইনজীবি। ব্লগার।

13
আলোচনা শুরু করুন কিংবা চলমান আলোচনায় অংশ নিন ~

মন্তব্য করতে হলে মুক্তাঙ্গনে লগ্-ইন করুন
avatar
  সাবস্ক্রাইব করুন  
সাম্প্রতিকতম সবচেয়ে পুরোনো সর্বাধিক ভোটপ্রাপ্ত
অবগত করুন
রেজাউল করিম সুমন
সদস্য

কেবল ঘৃণা দিয়ে বুদ্ধিজীবিতার এই পরাভব আর দেশ ও জাতির এই নিরুদ্দেশ যাত্রা ঠেকানো যাবে না…

মাসুদ করিম
সদস্য

বাংলাদেশে লুটেরাদের সবচেয়ে বড় সহায়ক শক্তি সুশীলকান্তরা, যেমনি বাংলাদেশে জঙ্গীদের সবচেয়ে বড় সহায়ক শক্তি মৌলবাদী প্রতিষ্ঠিত মাওলানারা। হ্যাঁ এদেরকে ঘৃণা করাই উচিত, কিন্তু একে কী দুঃসাহস বলা যায়।

মাসুদ করিম
সদস্য

আজকের সমকালে রাহাত খানের কলামে কামাল হোসেন নিয়ে কিছু কথা এখানে উদ্ধৃত করে রাখা প্রয়োজনীয় মনে হল। মহামান্য রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান কর্তৃক আহূত ইসি সংলাপে যোগ দিয়ে আরও দুটি ক্ষুদ্র দল বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি) এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ গত ২ জানুয়ারি তাদের আলাদা প্রস্তাবে জাতীয় নির্বাচনে তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়েছে। এর আগের দিন সংলাপে বসে বর্ষীয়ান আইনজীবী ও রাজনীতিক ড. কামাল হোসেন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনার দাবি জানিয়েছেন মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে। ড. কামাল হোসেনের বক্তব্যটি উল্লেখ ও পর্যালোচনার দাবি রাখে। তিনি তো শুধু একজন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আইনজীবী নন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রিয়পাত্র ছিলেন তিনি।… বাকিটুকু পড়ুন »

মাসুদ করিম
সদস্য

অ্যাটর্নি জেনারেলকে ‘জারজ’ বললেন কামাল হোসেন দেশের সর্বোচ্চ আদালতে প্রধান বিচারপতির এজলাসে রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা মাহবুবে আলমকে ‘জারজ’ বলেছেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী কামাল হোসেন। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) নিয়োগপ্রাপ্ত ১৩৮ জন চিকিৎসকের নিয়োগের বৈধতা নিয়ে এক মামলার শুনানিতে বুধবার এই ভাষা ব্যবহার করেন তিনি। আদালতে চিকিৎসকদের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী কামাল হোসেন, এম আমীর উল ইসলাম ও কামরুল হক সিদ্দিকী। সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী শরীফ ভূঁইয়া ও তানিম হোসেইন শাওন। অপরদিকে বিএসএমএমইউর পক্ষে শুনানিতে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও আইনজীবী তানজিব উল আলম। মাহবুবে আলম বক্তব্য উপস্থাপনের পর আদালত কামাল হোসেনের বক্তব্য জানতে… বাকিটুকু পড়ুন »

মাসুদ করিম
সদস্য

মাসুদ করিম
সদস্য

খেসারত অনেক হয়েছে, আর ভোট বর্জন নয়: কামাল একবার ভোট বর্জন করায় অনেক খেসারত দিতে হয়েছে মন্তব্য করে আর নির্বাচন বয়কটের আওয়াজ না তুলতে জোট নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরাম সভাপতি কামাল হোসেন। পাশাপাশি সরকারের প্রতি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন তিনি। এই দাবির পক্ষে যুক্তি দিয়ে কামাল হোসেন বলেছেন, দীর্ঘ দিন পরে দেশে একটি ‘গ্রহণযোগ্য’ নির্বাচন হতে চলায় প্রধান বিরোধী দলের নেত্রীকে কারাগারে রাখা সমীচীন হবে না, যেখানে অপর প্রধান দলের নেত্রী সরকার প্রধান থাকছেন। পাঁচ বছর আগে জাতীয় নির্বাচন বর্জন ও প্রতিহতের ডাক দিয়ে ব্যর্থ হওয়া বিএনপিকে নিয়ে… বাকিটুকু পড়ুন »

মাসুদ করিম
সদস্য
মাসুদ করিম
সদস্য

জামায়াত নিয়ে প্রশ্নে কামাল বললেন ‘খামোশ’ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে স্বাধীনতাবিরোধী দল জামায়াতে ইসলামীকে নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্ন শুনে ক্ষেপে গেলেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা কামাল হোসেন। প্রশ্নকারী সাংবাদিকদের ‘চিনে রাখার’ কথাও বলেছেন প্রবীণ এই রাজনীতিবিদ। গণফোরাম সভাপতি কামালের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা শুক্রবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে গিয়ে শহীদ বেদীতে শ্রদ্ধা জানান। জোটের নেতাদের মধ্যে জেএসডির আসম আবদুর রব, গণফোরামের জগলুল হায়দার আফ্রিক ও রেজা কিবরিয়া, বিএনপির আবদুস সালাম এবং গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি জাফরুল্লাহ চৌধুরী এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে কামাল বলেন, “স্বাধীনতার স্বপ্নকে বাস্তবায়নের বিরুদ্ধে যারা কাজ করছে, লোভ… বাকিটুকু পড়ুন »

মাসুদ করিম
সদস্য

ডঃ কামাল হোসেন বড় ঘরের ছেলে, ইউটিউবের এক ভিডিওতে দেখলাম তাঁর বাবা ডাক্তার এবং জমিদার পরিবারের সন্তান, তিনি বাল্যকালে কলিকাতায় বড় হয়েছেন। বিলাতি আমলের কলিকাতা কেন্দ্রিক এলিট মুসলমান পরিবার, তার মানে বাড়িতে বাংলা চলতো না, চলতো উর্দু আর ইংরেজি। ৪৭ এ দেশ ভাগের পরে তাঁরা পূর্ব পাকিস্তানে চলে আসেন। কলিকাতার রোশনাই ছেড়ে ঢাকায় এসে মানিয়ে নিতে কষ্ট হয়েছে বটে, কিন্তু কি আর করা, মানিয়ে তো নিতেই হবে। পূর্ব পাকিস্তানের চাষা ভুষোরা বাংলা উর্দু কিছুই বোঝে না, এদের সাথে মিলতে গিয়ে এরা খানিকটা বাংলাও শিখে ফেলেন। তবে কলিকাতায় মনের ভুলে হিন্দু পাড়ায় ঢুকে পড়লে চড় থাপ্পড় খাওয়ার যে অভিজ্ঞতা ছিল, সেটা… বাকিটুকু পড়ুন »

মাসুদ করিম
সদস্য

স্বাধীনতাবিরোধীদের নিয়ে প্রশ্নে কামাল বললেন ঐক্যের কথা দুইদিন আগে জামায়াতে ইসলামী প্রসঙ্গে প্রশ্নে সাংবাদিকের ওপর ক্ষিপ্ত হলেও বিজয় দিবসে একই ধরনের প্রশ্নে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা কামাল হোসেন ঐক্য সুসংহত করার কথা বলেছেন। বুদ্ধিজীবী দিবসে গত শুক্রবার মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানাতে যাওয়া কামাল হোসেনকে জামায়াত বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি এক সাংবাদিককে ‘খামোশ’ বলে সমালোচনার মুখে পড়েন। প্রশ্নকারী সাংবাদিককে চিনে রাখারও হুমকি দেন তিনি। ওই ঘটনায় বিভিন্ন মহলে প্রতিবাদ-সমালোচনার মুখে শনিবার দুঃখ প্রকাশ করে বিবৃতি দেন তিনি। রোববার সাভারে স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদনের পরও স্বাধীনতাবিরোধীদের নিয়ে রাজনীতি প্রসঙ্গে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে এবার কৌশলী পথে হাঁটেন কামাল হোসেন। তিনি বলেন, “আমরা… বাকিটুকু পড়ুন »

মাসুদ করিম
সদস্য

অনির্বাচিতদের শাসন মেনে নিতে পারি না: কামাল যারা জনগণকে ভোটের অধিকার থেকে বঞ্চিত করতে চায়, তাদেরকে স্বাধীনতার শত্রু ও ইয়াহিয়া খানের উত্তসূরী বলেছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি বলেন, “সংবিধানে লেখা আছে এদেশের মালিক জনগণ। আমরা ভোট দিতে পারব এই স্বপ্ন শহীদরা দেখেছিল, এদেশের মালিক হবে জনগণ- এই স্বপ্ন দেখেছিল। “আজকে ভোট দেবার জন্য আমরা যারা ঐক্যবদ্ধ হয়েছি। আমাদেরকে যারা সেই অধিকার থেকে বঞ্চিত করতে চায়, তারা স্বাধীনতার শত্রু, এরা হলে ইয়াহিয়া খানের উত্তরসূরি।” কামাল হোসেন বলেন, “ভোট দেয়াটা শুধু না, শহীদরা যেটা আমাদেরকে আমানত হিসেবে দিয়ে… বাকিটুকু পড়ুন »

মাসুদ করিম
সদস্য

ওই অর্থে জানোয়ার বলিনি: ড. কামাল পুলিশকে ওই অর্থে জানোয়ার বলিনি বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। ইসির বৈঠকে পুলিশকে জানোয়ার বলেছেন কিনা—সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ওই অর্থে তো বলেনি। তারা মানুষ হিসেবে ভূমিকা রাখবে, আমরা সেটা আশা করি। বলেছি, পুলিশ নিরপেক্ষ ভূমিকা রাখবে। আমরা তো পুলিশের প্রশংসাও করেছি।’ বুধবার (২৬ ডিসেম্বর) দুপুরে মতিঝিলে নিজের চেম্বারে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে ঐক্যফ্রন্টের বৈঠককালে তিনি পুলিশকে জানোয়ার বলেন। পুলিশ কেন এসেছিল জানতে চাইলে কামাল হোসেন বলেন, ‘পুলিশ এসেছিল কারণ… বাকিটুকু পড়ুন »

মাসুদ করিম
সদস্য

Bangladesh election: I am no challenger… just working to restore rule of law, democracy in Bangladesh, says Kamal Hossain … But, over the hour-long conversation, Hossain, a widely regarded secular icon, also expressed his discomfort towards the BNP’s track record with India as well its decision to field 22 members of the Bangladesh Jamaat-e-Islami, a banned fundamentalist political outfit. “I am sorry to say that fielding ex-Jamaat people is stupid. I had given it in writing that there will be no support to Jamaat, no bringing in religion, fundamentalism, extremism etc,” he says, with a sense of frustration at realpolitik.… বাকিটুকু পড়ুন »

  • Sign up
Password Strength Very Weak
Lost your password? Please enter your username or email address. You will receive a link to create a new password via email.
We do not share your personal details with anyone.